অক্সফোর্ডের করোনা প্রতিষেধক তৈরি হবে ভারতের পুনেতেও

বিশ্ব Tamalika Basu ২৬-জুন-২০২০
coronavirus outbreak
Novel coronavirus - 2019-nCoV, WUHAN virus concept. Chinese coronavirus outbreak. The medicine, the vaccine against the virus.

বিশ্বজুড়ে করোনা (Coronavirus) ত্রাস। এক কোটি ছুঁতে চলেছে করোনা সংক্রমণের গ্রাফ। পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মৃত্যু। এই পরিস্থিতিতে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা আশার কথা শোনাচ্ছেন। আগামী জুলাই মাসের প্রথম সপ্তাহে মানুষের উপর প্রয়োগ করা হবে ‘চ্যাডক্স’ ভ্যাকসিন। এই পর্বে পাশ করে গেলেই ২০২০ সালের শেষ দিকে করোনার প্রতিষেধক বাজারে আসতে পারে বলে ধারণা বিশেষজ্ঞদের। আর ওষুধ উৎপাদন শুরু করার ক্ষেত্রে ইতিমধ্যেই নিজেদের প্রস্তুত রেখেছে ভারতও। পুনের সিরাম ইনস্টিটিউটে তৈরি হবে অক্সফোর্ডের এই করোনা প্রতিষেধক – ‘চ্যাডক্স’।

সিরাম ইনস্টিটিউট অফ ইন্ডিয়ার (Serum Institute of India) দাবি, অক্সফোর্ড ভ্যাকসিনের প্রথম পর্যায়ের ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে ভাল ফল মিলছে। সব ঠিক থাকলে আগামী জুলাইতেই কয়েক লক্ষ ভ্যাকসিন তারা তৈরি করে ফেলবে। প্রাথমিকভাবে ৩০ লক্ষ ডোজ তৈরি হবে। পরবর্তী সময়ে উৎপাদনের হার কয়েক লক্ষ হয়ে যাবে।

ব্রাজিল এবং দক্ষিণ আফ্রিকাতেও এই প্রতিষেধকের পরীক্ষামূলক প্রয়োগ চলবে। ইতিমধ্যেই প্রতিষেধক ট্রায়াল নিয়ে অক্সফোর্ডের সঙ্গে ব্রাজিলের এক স্বাস্থ্য নিয়ন্ত্রক সংস্থার কথা হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাতে চ্যাডক্স ভ্যাকসিন টিমের প্রধান সারা গিলবার্টকে ইমেল করা হলে তিনি জানান, “চ্যাডক্স নিয়ে ট্রায়াল চলছে। এবং তার রেজাল্টও আশানুরূপ। এই চ্যাডক্স প্রতিষেধক নিয়ে আগেও কাজ করেছি। ২০১৪ সালে আফ্রিকায় ইবোলা প্রতিষেধকের ব্লু-প্রিন্টেও চ্যাডক্সের নাম উঠেছিল। তার আগে মার্সের ভ্যাকসিন হিসেবেও চ্যাডক্স প্রথম পর্বের ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে ভাল কাজ করেছে। তাছাড়াও জিকা, চিকনগুনিয়াতেও চ্যাডক্সের ট্রায়াল চলেছে। এবার SARS-CoV-2’এর পালা। আপাতত এর থেকে বেশি বলাটা ঠিক হবে না।” তবে এই মুহূর্তে প্রতিষেধকটি নিয়ে অক্সফোর্ডের গবেষকরা বেশ আত্মবিশ্বাসী। তাঁরা মনে করছেন, পারলে চ্যাডক্সই পারবে, করোনা থেকে সাধারণের জীবন বাঁচাতে।