অযাচিত অপরাধবোধ মন থেকে দূর করুন

Kemurungan atau depresi © Milkos | Dreamstime.com

প্রতিটি ব্যক্তিই তাঁর নিজস্ব ব্যক্তিসত্তার মধ্যে দিয়ে নিজের যাবতীয় ক্ষমতা, যোগ্যতা, সাফল্য এবং ব্যর্থতার প্রকাশ ঘটিয়ে থাকে। কিন্তু দোষগুণ নিয়েই মানুষের সামগ্রিক ব্যক্তিত্বের নির্মাণ। পরিবারে একজন মানুষ অনেক ভূমিকা পালন করেন। আপনি নারী পুরুষ যাই হন না কেন, আপনি পিতা মাতা, সন্তান, ভ্রাতা ভগিনী- কোনো না কোনো ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছেন। কাজেই পরিবারের আপনার কাছ থেকে অতিরিক্ত প্রত্যাশাও জীবনকে অনেকাংশেই ভারাক্রান্ত করতে পারে। অতিরিক্ত চাপ এবং প্রত্যাশা পূরণে ব্যর্থতাবোধ থেকে জীবনে নানারকম সমস্যা হতে পারে। তা আমাদের ঠেলে দিতে পারে আত্মগ্লানির দিকে। এই ধরনের সমস্যা সমাধানের সহজ কয়েকটি পদ্ধতি রয়েছে…

প্রথমত কোনটা দোষ নয়, সে সম্পর্কে সচেতন হয়ে ওঠা

পরিবারের চাপ এবং অতিরিক্ত প্রত্যাশার কারণে যদি আপনি কোনও ভুল করেও ফেলেন তবে প্রথম পদক্ষেপটি হ’ল আপনার সিদ্ধান্তগুলিকে আদৌ দোষযুক্ত বলা যায় কিনা সেই নিয়ে চিন্তা ভাবনা করা। সেই বিষয়ে আলোচনা করুন অন্যদের সঙ্গে। আপনার সাফল্য এবং ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়াগুলি আপনার পরিবারের দৃষ্টিকোণ থেকে নয় বরং কাজগুলিকে উদ্দেশ্যমূলকভাবে দেখার চেষ্টা করুন। কাজগুলির ফলাফলে আপনি কতটা সন্তুষ্ট সেইদিকেও বিবেচনা করার চেষ্টা করুন। যদি কোনও পরিস্থিতি বা সমস্যার জন্য আপনি উপযুক্ত যুক্তি সহকারে আপনার প্রতিক্রিয়া ব্যাখ্যা করতে পারেন পরিবারের সামনে, তবে আপনার সম্পর্কে এবং আপনার কাজের সম্পর্কে সন্দেহের কোনও অবকাশ তৈরি হবে না। একটা জিনিস সবসময় মনে রাখতে হবে পরিবার এবং অন্য কোনও ব্যক্তির ধারণার ভিত্তিতে নিজেকে অপরাধী মনে করবেন না কোনদিন।

দ্বিতীয়ত নিজের দোষগুলিকেও খোঁজার চেষ্টা করুন

অবশ্যই, মানুষ মাত্রেই ভুল করে। আপনি সত্যিই যা ভুল করেছেন সে সম্পর্কে আপনার কী দোষ আছে তা চিহ্নিত করাও বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ। তবে যে ভুলটি করেছেন সেই বিষয়ে মনোনিবেশ করার পাশাপাশি ভুলগুলোকে শুধরে নেওয়া বিশেষভাবে প্রয়োজন। একইসঙ্গে সারাজীবন ধরে আত্মগ্লানিতে না ভুগে কীভাবে ভবিষ্যতে সেই ভুলগুলোকে যথাসম্ভব এড়ানো যায় সেই পথটিও অবলম্বন করতে হবে। পারিবারিক বিষয়ে অপরাধবোধ দূরীকরণের অন্যতম সেরা উপায় হল ক্ষমা চাওয়া। আন্তরিকভাবে ক্ষমা চাইলে দেখবেন অনেক কঠিন পথও খুব সহজেই সরল হয়ে উঠবে। মূলত পরিবারের সদস্য বা সদস্যদের ভালবাসা এবং শ্রদ্ধার যোগ্য হয়ে ওঠার জন্যই আপনি কঠোর পরিশ্রম করছেন। পাশাপাশি নিজের ব্যক্তিগত জীবনকে আরও উন্নত করে তোলার জন্য কাজ করেছেন সেই উপায়গুলিকেই নিজের জীবনে বজায় রাখার চেষ্টা করুন দেখবেন তাতে আপনি সেই অপরাধের গ্লানি থেকে অনেকাংশেই মুক্ত হতে পেরেছেন। নিজের ভুলগুলোকে একরকমভাবে শুধরে নিতে পেরেছেন আগামী দিনের জন্য।

অন্যান্য পদ্ধতি

পরিবারের কাছে আপনি যদি আপনার দোষগুলোকে স্বীকার করতে অক্ষম হন বা আপনার পরিবারের প্রত্যাশার কারণে আপনার অপরাধবোধের তীব্রতা বেড়েছে মনে হয় তবে আপনাকে বাইরের সাহায্যের প্রয়োজন হতে পারে। মনোরোগ বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নেওয়ার প্রয়োজনবোধ করলে সাহায্য নিতে পারেন। অবসাদের মাত্রা যদি অল্প থেকে মাঝারি হয় তাহলে তাহলে অ্যান্টিডিপ্রেশনের ওষুধের সঙ্গে কগনিটিভ আচরণগত থেরাপি পদ্ধতিও করা যেতে পারে। এইভাবেই আপনি তৃতীয় কোনও ব্যক্তির সাহায্যে বা নিজে থেকেই নিজের সমস্যাগুলোকে কাটিয়ে উঠতে পারবেন। নিজের মনোবল বাড়ানোর প্রয়োজনীয় জোর পাবেন এই পদ্ধতি অবলম্বনের মাধ্যমে।