শরিয়াহ সম্মত ওয়েব পরিবেশ. আরওসন্ধানকরুন

ইসলাম প্রচারের প্রাণকেন্দ্র হয়ে উঠছে জাপানের ক্যাসিনো বন্ধ করে গড়ে ওঠা মসজিদ

Islam. Mosque silhouette in night sky with crescent moon and star

ক্যাসিনো কিনে নিয়ে তার জায়গায় তৈরি হলো মসজিদ। এমনই ঘটনা ঘটেছে জাপানের টোকিও শহরের পার্শ্ববর্তী সাইতামা প্রিপেকচারের কোশিগায়া সিটির গামো স্টেশন এলাকায়। জাপানের সবচেয়ে বড় মসজিদটি তৈরি করছে ইসলামিক কালচারাল ফাউন্ডেশন জাপান। বর্তমানে এটি একটি সুসজ্জিত দোতলা মসজিদ তবে ভবিষ্যতে আর্থিক সহযোগিতা ও সময় নিয়ে মসজিদকে দশ তলা বানানোর পরিকল্পনা আছে। জাপানের প্রথম পূর্ণাঙ্গ মসজিদ কমপ্লেক্সে ২৪ ঘন্টা যেকোনো ধর্মবর্ণের মানুষ জ্ঞানার্জন করতে পারবে। একসাথে প্রায় ২০০০ জন নামাজ আদায় করতে পারবে এই মসজিদে। এছাড়াও আছে শতাধিক গাড়ি পার্কিং-এর ব্যবস্থা। স্থানীয় মুসলমান ছাড়াও বহু প্রবাসী মুসলিম মানুষ ও সংগঠনের সহযোগীতায় জাপান সরকার অনুমোদিত এই ইসলাম প্রচার কেন্দ্রটি সমগ্র জাপানে ইসলাম চর্চার প্রধান কেন্দ্র হয়ে উঠবে খুব শীঘ্রই। মসজিদটির নাম দেওয়া হয়েছে “বায়তুল আমান মসজিদ কমপ্লেক্স” ।

মসজিদের স্বাভাবিক কার্যকলাপের পাশাপাশি এখানে ইসলামি শিক্ষা, কোরান গবেষণা, বিশ্বমানের সমৃদ্ধ লাইব্রেরি লাইব্রেরি, ইন্টারন্যাশনাল ইসলামিক স্কুল, পূর্ণাঙ্গ হিফজুল কুরাণ মাদরাসা চালু করা হবে। এছাড়াও ইসলামচেতনা প্রচারের জন্য বিভিন্ন ছোটো-বড়ো ধর্মীয় অনুষ্ঠান পালন, সেমিনার, প্রতিযোগীতা, বড় ও ছোটো প্রত্যেকের কোরাণ শিক্ষা সবই হবে এই মসজিদে। সমস্ত কিছু হবে ইংরেজি ও জাপানি দুই ভাষাতে, যাতে আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রেও ছড়িয়ে দেওয়া যায় এই উদ্যোগ। জাপানে বসবাসকারী প্রায় দু-লক্ষ মুসলিমদের জন্য বানানো এই মসজিদ বানানো হয় একটা ক্যাসিনো ক্রয় করে। মসজিদ ভবন সহ পুরো জায়গাটি ক্রয় করতে খরচ হয়েছে ১৮০০০০০০০ জাপানি ইয়েন বা ১.৬ মিলিয়ন ডলার। প্রায় দেড় হাজার স্কোয়ার মিটার বিস্তৃত এই মসজিদ পূর্ণাঙ্গ হলে তা হবে জাপানের সর্ববৃহৎ মসজিদ।

বর্তমান মসজিদটিতে আছে দোতলা ভবনে নারী ও পুরুষদের জন্য আলাদা ভবন, পৃথক অজুখানা ও ৫ ওয়াক্ত নামাজের ব্যবস্থা। সর্বসাধারণের জন্য লাইব্রেরি, ইন্টারন্যাশনাল ইসলামিক স্কুল, হিফজুল কুরাণ মাদরাসা, ইসলামি দাওয়াহ বিভাগ। বার্ষিক অনুষ্ঠানের মধ্যে রয়েছে কারি ফেস্টিভাল, কোরিওকাই ফর জাপানিজ, ইসলামিক শিক্ষা ও কুরাণ গবেষণা, রমজান ও ঈদ, নিকাহ ব্যবস্থা, মাহফিল ও বিভিন্ন প্রতিযোগীতা এছাড়াও আরও অনেক ব্যবস্থা আছে।

জাপাানের বর্ধনশীল মুসলিস জনসংখ্যার সাথে সামঞ্জস্য রেখে মসজিদের পরিমাণ উর্ধ্বগামী। এই বায়তুল আমান মসজিদ কমপ্লেক্স নিঃসন্দেহে জাপানে ইসলাম ধর্মের প্রচারে নতুন মোড় ঘোরাবে।

কিছুবলারথাকলে

যোগাযোগকরুন