উত্তরাধিকারী সাব্যস্ত হওয়ার মাঝে প্রতিবন্ধকতা এবং উত্তরাধিকারী সাব্যস্ত হওয়ার শর্তসমূহ

law paper pen

উত্তরাধিকার সিরিজ (২য় পর্ব)

 

উত্তরাধিকার সাব্যস্ত হওয়ার মাঝে কিছু প্রতিবন্ধকতা

দু’জন ব্যক্তি একে অপরের উত্তরাধিকারী সাব্যস্ত হওয়ার যেমন কিছু কারণ রয়েছে, তেমনি কিছু প্রতিবন্ধকতাও রয়েছে যার কারণে উত্তরাধিকার সাব্যস্তকরণ বাতিল হয়ে যায়। এই প্রতিবন্ধকতাগুলি সম্পর্কে নিম্নে সংক্ষেপে আলোচনা করা হলঃ

প্রথম প্রতিবন্ধকতা: ধর্মের মধ্যে পার্থক্য

যদি মৃত ব্যক্তি একটি ধর্ম অনুসরণ করে এবং উত্তরাধিকারী অন্য ধর্ম অনুসরণ করে তবে দুটি ব্যক্তির মধ্যে ধর্মের পার্থক্য থাকার দরুণ তারা একে অপরের উত্তরাধিকার সাব্যস্ত হবে না। ধর্মের মধ্যে এই পার্থক্য বিভিন্ন ধরণের হতে পারেঃ

১) মৃত ব্যক্তি মুসলিম এবং উত্তরাধিকারী কাফেরঃ এক্ষেত্রে কাফের তার মৃত মুসলিম আত্মীয়ের কাছ থেকে উত্তরাধিকার সূত্রে কোনো সম্পত্তি পাবে না। নিম্নবর্ণিত হাদীসের কারণে সাধারণভাবে আলেমদের মধ্যে এই বিষয়ে কোনো মতভেদ নেই। হাদিসে আছে, “কোনো মুসলিম কোনো কাফেরের কাছ থেকে উত্তরাধিকার প্রাপ্ত হবে না এবং কোনো কাফেরও কোনো মুসলমানের কাছ থেকে উত্তরাধিকার প্রাপ্ত হবে না।” (বুখারী)

২) মৃত ব্যক্তি কাফের এবং উত্তরাধিকারী মুসলিমঃ এক্ষেত্রে, মুসলমানকে তার কাফের আত্মীয়ের সম্পত্তি থেকে উত্তরাধিকারী হওয়া উচিত নয়। বেশিরভাগ আলেমেই উপরে বর্ণিত হাদিসের উপর ভিত্তি করে এটি বলে থাকেন।

৩) মৃত ব্যক্তি কাফের, নির্দিষ্ট ধর্মের অন্তর্ভুক্ত এবং উত্তরাধিকারীও কাফের, তবে অন্য ধর্মের অন্তর্ভুক্তঃ এক্ষেত্রে ইসলামী আইন অনুসারে আরেকটি হাদীসের কারণে তারাও একে অপরের সম্পত্তির উত্তরাধিকারী হবে না। হাদিসে আছে, “দুটি ভিন্ন ধর্মের মানুষও একে অপরের কাছ থেকে উত্তরাধিকারী সাব্যস্ত হবে না।” (আবু দাউদ এবং তিরমিযী)

দ্বিতীয় প্রতিবন্ধক: হত্যা

হত্যা হল এমন একটি গর্হিত কাজ করা যা অন্যের জীবনের অবসান ঘটায়। এজন্য ইসলামী আইন অনুসারে হত্যাকারী কখনও মৃত ব্যক্তির কাছ থেকে উত্তরাধিকার প্রাপ্ত হবে না। যদি কোনো পুত্রও তার পিতাকে হত্যা করে তবুও সে তার পিতার সম্পত্তির উত্তরাধিকারী হবে না।

এটি সর্বজনবিদিত যে হত্যাকাণ্ড বিভিন্ন প্রকারের: উদাহরণস্বরূপ, বিনা কারণে হত্যা, ইচ্ছাকৃত হত্যা, উদ্দেশ্যমূলক হত্যা, ভুল করে হত্যা এবং ন্যায়সঙ্গত কারণে হত্যা (যেমন আইনি প্রতিশোধ কার্যকর করার ক্ষেত্রে হত্যা)। নিম্নলিখিত হাদীসের কারণে অধিকাংশ আলেমই একমত যে, হত্যা উত্তরাধিকারের প্রতিবন্ধকতাগুলির মধ্যে একটি। হাদিসে আছে, “হত্যাকারীর জন্য উত্তরাধিকারের সম্পত্তিতে কোনো অংশ নেই, যদিও হত্যাকারী মৃত ব্যক্তির নিকটাত্মীয় হয়ে থাকে।” (আবু দাউদ)

তৃতীয় প্রতিবন্ধকতা: দাসত্ব

এটি অন্যের নিকট দাসত্বে আবদ্ধ হওয়ার অবস্থা। একজন ক্রীতদাস কখনই একজন মুক্ত মানুষের সম্পত্তি উত্তরাধিকার সাব্যস্ত হয় না, যেহেতু দাসের নিজস্ব কোনো সম্পত্তি নেই।

চতুর্থ প্রতিবন্ধকতা: জারজত্ব

জারজ সন্তান তার পিতার সম্পত্তির কোনো অংশ পায় না। তবে কোনো কোনো আলেমের মতে, জারজ সন্তান তার মায়ের সম্পত্তির উত্তরাধিকার সাব্যস্ত হয়।

উত্তরাধিকার সাব্যস্ত হওয়ার শর্তসমূহ

উত্তরাধিকার সাব্যস্ত হওয়ার যেমন কিছু কারণ এবং প্রতিবন্ধকতা রয়েছে, তেমনি এর কিছু শর্তও রয়েছে যেগুলি পূরণ না হওয়ার আগ পর্যন্ত উত্তরাধিকার সাব্যস্ত হয় না। শর্তসমূহ নিম্নরূপঃ

প্রথম শর্ত: কোনো ব্যক্তির মৃত্যু

এর অর্থ হল, মালিকের মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তার সম্পত্তির ভিতর কেউ উত্তরাধিকার সাব্যস্ত হবে

না। একমাত্র মৃত্যুর পরেই তার জীবিত ওয়ারিশরা (কারা ওয়ারিশ সাব্যস্ত হবে সে সম্পর্কে বিগত পর্বে আলোচনা করা হয়েছে) উত্তরাধিকার সাব্যস্ত হবে এবং নির্দিষ্ট অনুপাতে ওয়ারিশদের মাঝে সম্পত্তি বন্টনন হবে।

দ্বিতীয় শর্ত: কোনো ব্যক্তির মৃত্যুর পরে উত্তরাধিকারী বেঁচে আছে কিনা তা নিশ্চিত রূপে জানা

এর অর্থ হল মালিকের মৃত্যুর পরে মৃত ব্যক্তির উত্তরাধিকারী বেঁচে থাকতে হবে। এটি দু ভাবে জানা যেতে পারাঃ

প্রকৃতপক্ষে, এই অর্থে যে, তাঁর বেঁচে থাকা প্রত্যক্ষদর্শী কারও সাক্ষ্যের দ্বারা প্রমাণিত।

এবং সম্ভাব্য হিসাবে, অর্থাৎ মালিকের মৃত্যুর সময় উত্তরাধিকার সম্ভবত বেঁচে আছে; যেমন গর্ভাবস্থার ক্ষেত্রে, উত্তরাধিকার সাব্যস্ত হওয়া বাচ্চা যদি গর্ভে থাকে এবং এর দৃঢ় সম্ভাবনা থাকে যে, সে জীবিত আছে তবে জন্মের পর সেই বাচ্চার উত্তরাধিকার সাব্যস্ত হবে।

সুতরাং, যেকোনোভাবে যদি জানা যায় যে, মালিকের মৃত্যুর পর তার ওয়ারিশ বেচে আছে, তবে স্বাভাবিকভাবেই তাদের মধ্যে উত্তরাধিকার নিয়ে কোনো প্রশ্নই আসবে না।

তৃতীয় শর্ত: উত্তরাধিকার সাব্যস্ত হওয়ার মাঝে সকল প্রতিবন্ধকতার অনুপস্থিতি (পূর্বে বিষয়টি উল্লেখ করা হয়েছে)

যদি এই তিনটি শর্ত পূরণ হয় এবং উত্তরাধিকারের সমস্ত কারণও সাব্যস্ত হয় এর তবে মৃত মালিকের সম্পত্তিতে উত্তরাধিকারীরা নির্দিষ্ট অনুপাতে উত্তরাধিকার সাব্যস্ত হবে।

 

(চলবে)