উৎসবে বারবিকিউ

সুস্বাদ Omar Faruque ১৯-আগস্ট-২০১৯

ঈদুল আজহার সময় বারবিকিউ রান্না করা সর্বোত্তম, এটি আপনার বাড়ির পিছনের উঠান, বারান্দা বা ছাদে আপনার নিকটতম এবং সবচেয়ে প্রিয়জনদের সাথে করতে পারেন। একরকম, ঈদের দ্বিতীয় দিন অলৌকিকভাবে বৃষ্টি হয়, যা সন্ধ্যার দিকে বারবিকিউ খাবারের জন্য প্রস্তুত করতে যথেষ্ট শীতল করে তোলে! আমাদের দেশে বন্ধুরা মিলে একসাথে বারবিকিউ করাটা মনে হয় অনেক দিনের ঐতিহ্য।বিশেষ করে কোরবানির ঈদের ২য়, ৩য় দিন অনেকেই এটা করে থাকেন।

 

যা যা লাগবেঃ

১। বারবিকিউ চুলা ( বাজারে কিনতে পাওয়া যায় ৪০০-৪০০০ টাকার মধ্যে)/অথবা বানিয়ে নিতে পারেন/ অথবা বাসার ছাদের এক কোনে ২ টা ইট একটার উপর একটা রেখে,মাঝে পুরু করে কিছু বালু বিছিয়ে কয়লা নিয়েও করতে পারেন।

২।কয়লা ( কাঠ কয়লা হলে বেশী ভাল হয় না পেলে ভুষির কয়লাগুলু ও চলবে)

৩।কেরোসিন তেল

৪।সয়াবিন

৫।মসলা ( রাঁধুনি মাংসের মসলা মিক্সড ১৫ টাকার মিনি প্যাকেট প্রতি ২ কেজি মুরগির জন্য ) অথবা বারবিকিউ সস ( ৫৫০ টাকা সুপার শপগুলুতে পাবেন) [বারবিকিউ করতে এই সস না থাকলেও চলবে ] যদি মসলা ও সস দুটুই ব্যবহার করতে চান তাও করতে পারেন।তবে এক্ষেত্রে মসলার পরিমান কম দিবেন কারন সসে প্রায় মসলায় দেয়া থাকে।

৬। সয়া সস ( প্রতি ২ কেজি মুরগীর জন্য ৫ চা-চামচ)

৭।টমেটো সস

৮।মাংস

৯।আদা-রাসুন বাটা ( না থাকলেও চলবে )

 

উৎপাদন প্রক্রিয়াঃ

মুরগী কিনে ধুয়ে নিন, ১ কেজি মুরগী হলে লম্বা করে ২ পিস করুন,এর বেশী হলে ৪ পিস করতে পারেন,একটা কাটা চামচ দিয়ে মাংসের টুকরা একটু মাঝখানে-উপরে-নিচে কেচে নিন।তারপর যদি মসলা দিয়ে বারবিকিউ করতে চান তাহলে মসলা,সয়াসস,আদা-রাসুন বাটা দিয়ে মুরগীর টুকরাগুলুকে ২ ঘণ্টা মেয়নেট করে রাখুন। আর বারবিকিউ সস দিয়ে করতে চাইলে পরিমান মত বারবিকিউসস ও সয়াসস দিয়ে মুরগীর টুকরা ২ ঘণ্টা মেয়নেট করে রাখুন। ২ ঘণ্টা হওয়ার ২০ মিনিট আগে থেকে বারবিকিউ চুলায় আগুন ধরানোর কাজে লেগে পড়ুন,প্রথমে চুলায় কিছু কয়লা নিন,তারপর কেরোসিন ছড়িয়ে দিন কয়লার উপরে,ম্যাচ দিয়ে আগুন জ্বালান। এখানে আগুনটার দিকে একটু লক্ষ রাখতে হবে কারন আগুন জ্বালানোর কয়েক সেকেন্ড পরেই আগুন নিভে যেতে চাইবে, সুতরাং কেরোসিন আস্তে আস্তে ঢালুন এবং কেরোসিন চুলার আগুনের উপরে  এভাবে ঢালুন যাতে চুলায় আগুনটা চুলার সব জায়গায় সমপরিমানে জ্বলে। এর জন্য আপনার চুলা , শিক, কেরোশিন তৈল, কয়লা ইত্যাদি জিনিস লাগবে।

ভ্রমণের সঙ্গে বারবিকিউয়ের একটা বিশেষ যোগ আছে। পরিপাটি রিসর্ট বা গহিন অরণ্য—খাবার ঝলসাতে পারবেন সবখানে। বেড়াতে গিয়ে বারবিকিউ করতে চাইলে আগেভাগে কিছু উপকরণ ব্যাগে ভরে নিতে পারেন। বাজারে নানা ধরনের সস বা প্যাকেটজাত মসলার গুঁড়া পাওয়া যায়, যা দিয়ে সহজেই মজাদার বারবিকিউ করা যায়।

 

Photo by Amanda Kerr on Unsplash

Source