SalamWebToday নিউজলেটার
Sign up to get weekly SalamWebToday articles!
আমরা দুঃখিত কোনো কারণে ত্রুটি দেখা গিয়েছে:
সম্মতি জানানোর অর্থ, আপনি Salamweb-এর শর্তাবলী এবং গোপনীয়তার নীতি মেনে নিচ্ছেন
নিউজলেটার শিল্প

করোনা পুনঃসংক্রমণের ভয়? নিজস্ব রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থার উপর থাকুক ভরসা

শারীরিক স্বাস্থ্য ১১ ফেব্রু. ২০২১
জ্ঞান-বিজ্ঞান
রোগ প্রতিরোধ
© Akesin | Dreamstime.com

যেকোনো রোগ সংক্রমণের বিরুদ্ধে আমাদের প্রথম রক্ষকবচ হল আমাদের দেহের নিজস্ব রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বা ‘ইমিউন সিস্টেম’ । কম্পিউটারে ভাইরাস ঢুকলে আমরা যেমন অ্যান্টি-ভাইরাস এর সাহায্য নিই। তেমনি আমাদের দেহের রোগ প্রতিরোধক ব্যবস্থাই হল সেই অ্যান্টি-ভাইরাসের মত। পুরো ২০২০ সাল COVID19 বা সহজভাবে বললে করোনা পৃথিবী জুড়ে তান্ডব চালিয়েছে। প্রচুর লোক যেমন মারা গেছে, ঠিক তেমনি তার থেকে অনেকগুন বেশি লোক সেরেও উঠেছে। এই মুহূর্তে সবথেকে গুরুত্ত্বপূর্ণ প্রশ্ন হল যারা সেরে উঠছেন তারা কতদিনের জন্য নিরাপদ? Rockfeller University এর বিজ্ঞানীরা তারই উত্তর খুঁজলেন এবং বিশ্বের সবথেকে নামী জার্নাল Nature-এ ছাপা হল তাঁদের গবেষণা।

আমাদের দেহের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা কাজ করে কীভাবে?

দেহে কোনো সংক্রমণ ঘটলে, যেমন ভাইরাস ঢুকলে, আমাদের নিজস্ব রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা তার সর্বশক্তি দিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ে তার মোকাবিলা করতে। কখনও তা সফল হয় আবার কখনও আমাদের দেহের প্রতিরোধ ব্যবস্থার কাছে সম্পূর্ণ অপরিচিত কোনো ভাইরাস হলে সেই চেষ্টা পুরোপুরি বা আংশিক ভাবে ব্যর্থ হয়। কিন্তু আনন্দের বিষয় হল আমাদের ইমিউন সিস্টেম খুব বুদ্ধিমান। তৎক্ষণাৎ সেই ভাইরাসটির সাথে লড়ার জন্য একধরণের প্রোটিন তৈরী করতে শুরু করে দেয়। এই প্রোটিনটিই হল অ্যান্টিবডি। এই অ্যান্টিবডি শরীরে তৈরী হয়ে গেলে সেটি ভাইরাসটির বিরুদ্ধে শক্তিশালী প্রতিরোধ ব্যবস্থা তৈরী করে শরীরকে রোগমুক্ত করে।

করোনার ক্ষেত্রে নতুন কী জানা গেল?

গবেষণাতে দেখা গেছে একবার করোনা সংক্রমিত হয়ে সেরে ওঠার পর আমাদের দেহের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা ভাইরাসটিকে চিনে রাখছে। ফলে পরেরবার তার মোকাবিলায় আরো শক্তিশালী অ্যান্টিবডি তৈরী হচ্ছে। Laboratory of Molecular Immunology এর প্রধান প্রফেসর মাইকেল নসেনউইগ জানালেন,”আমরা দেখেছি এই ইমিউন সিস্টেম বেশ অনেকদিন পর্যন্ত দেহকে রক্ষা করতে সক্ষম। উপরন্তু, তার মধ্যেই পুনঃসংক্রমণের ক্ষেত্রে আরো দ্রুত শক্তিশালী অস্ত্র তৈরী করে ফেলতে পারে। এটা সত্যিই একটা আনন্দের খবর। ”

গবেষকরা দেখেছেন ভাইরাসের বিরুদ্ধে তৈরী হওয়া অ্যান্টিবডি বেশ অনেকদিন পর্যন্ত রক্তের প্লাজমাতে থেকে যায়। কিন্তু আমাদের রোগ প্রতিরোধক ব্যবস্থা শুধুই যে অ্যান্টিবডি তৈরী করে তা নয়। তারা “Memory B cells” নামে প্রোটিন তৈরী করে। এই প্রোটিন পরবর্তী সংক্রমণের সময় ভাইরাসটিকে দ্রুত চিনে ফেলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পারে। ৮৭ জন করোনা থেকে সেরে ওঠা রোগীর উপর পরীক্ষা করে তারা দেখেছেন যে ৬ মাস অব্দি অ্যান্টিবডির উপস্থিতি থাকলেও তারা সংখ্যায় খুব কমে যায়। কিন্তু অদ্ভুতভাবে ওই B cells এর সংখ্যা কিন্তু কমেনা, বরং বাড়ে।

Memory B cells এর উপর আরো গবেষণা চালিয়ে দেখা গিয়েছে যে এই কোষগুলি নিজেদের বিবর্তিত করতে থাকে। ফলে আরো শক্তিশালী অ্যান্টিবডি তৈরী করতে পারে। নসেনউইগ জানিয়েছেন যে এই ধরণের ব্যাপার HIV এর মতো দীর্ঘস্থায়ী ভাইরাসের ক্ষেত্রে ঘটা খুব সাধারণ ব্যাপার হলেও COVID19 এর করোনা ভাইরাস SARS-CoV-2 এর ক্ষেত্রে তারা আশা করেননি।