কাশ্মীর ভ্রমণে ব্রিটেন, জার্মানি, অস্ট্রেলিয়া পর্যটকদের সতর্ক করলো

সৌন্দর্যনীয় স্থান Omar Faruque ২৫-আগস্ট-২০১৯

জম্মু-কাশ্মীরের পরিস্থিতি নিয়ে গোটা ভারতবর্ষে উদ্বেগ। কী হচ্ছে, কী হবে, তা কারও জানা নেই। অমরনাথ যাত্রীদের ফিরে আসতে অনুরোধ করেছে জম্মু-কাশ্মীর প্রশাসন, এদিকে অমরনাথ যাত্রাপথে উদ্ধার হয়েছে পাক অস্ত্র। আবার উপত্যকায় মোতায়েন করা হয়েছে ২৫,০০০ আধাসেনাও। সবমিলিয়ে জম্মু-কাশ্মীর নিয়ে দোলাচলে প্রত্যেক ভারতবাসী। সারা বছর ভারতীয় পর্যটকদের তুলনায় কাশ্মীরে বিদেশি পর্যটকের সংখ্যা বেশি থাকে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি থাকে ব্রিটিশ, জার্মান আর অস্ট্রেলীয় পর্যটকরা। এই দেশগুলি ভ্রমণকারী নাগরিকদের কাশ্মীর নিয়ে সতর্ক করেছে। তবে এই পরিস্থিতি নিয়ে ঘাম ছুটেছে বিশ্বের অন্য দেশেরও। কারণ পর্যটক।
ব্রিটেনের তরফে জানানো হয়েছে, যে সমস্ত পর্যটকরা এখন জম্মু-কাশ্মীরে রয়েছেন বা ঘুরতে গেছেন তারা যেন ‘সতর্ক’ এবং ‘সজাগ’ থাকেন। স্থানীয় প্রশাসনের আধিকারিকদের কথা শুনুন এবং যথাসম্ভব ‘সেফ জোন’-এ থাকুন। জার্মানি ও অস্ট্রেলিয়ার প্রশাসনও তাদের নাগরিকদের যারা কাশ্মীরে আছেন তাদের উদ্দেশে একই সতর্কবাণী দিয়েছে। পাশাপাশি, যারা কাশ্মীর যেতে চাইছেন তাদের কড়াভাবে সতর্ক করা হয়েছে যে, এখনও কাশ্মীরে কোনওভাবেই ঘুরতে যাবেন না। বিবৃতি দিয়ে ঘোষণা করা হয়েছে, এই মূহুর্তে কাশ্মীরে ঘুরতে যাওয়া ভীষণভাবেই ঝুঁকিপূর্ণ বিষয়। সেখানে এই মূহুর্তে না যাওয়াই শোভনীয়। যারা ইতিমধ্যেই সেখানে রয়েছেন তারা যেন সুরক্ষিত জায়গা থেকে কোথাও না যান।
সম্প্রতি কাশ্মীরে ১০ হাজার ভারতীয় সেনা পাঠানো হয়েছিল। কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তের পর সারা দেশে হৈচৈ পড়ে যায়। সেই ঘটনার পর ফের গত শুক্রবার (২ আগস্ট) ২৮ হাজার সেনা পাঠানো হয়েছে। ফলে যে কোনো রকম গোলমালের আশঙ্কা রয়েছে তা আন্দাজ করাই যাচ্ছে। খবর আসতে থাকে অমরনাথের তীর্থযাত্রায় সীমান্তের ওপারে পাকিস্তান থেকে হামলা হতে পারে।
তবে সেখানে থাকা বিদেশি হোক কী ভারতীয় পর্যটক, সকলেই জম্মু প্রশাসনের বিজ্ঞপ্তি শুনে উপত্যকা থেকে বেরতে চাইছেন। পর্যটকদের এমন ভীড় যে, বিমান টিকিট পর্যন্ত পাওয়া যাচ্ছে না বলে খবর। সবমিলিয়ে এখন রীতিমতো আতঙ্কের পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে গোটা উপত্যকা জুড়ে। তবে রাজ্যপাল সত্যপাল মালিকের কথায়, অকারণে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। প্রসঙ্গত, অমরনাথ যাত্রীদের ফিরে যাওয়ার বার্তা দেওয়ার পরই পরিস্থিতি জটিল হতে শুরু করেছে। উপত্যকায় আদতে কী চলছে তা জানতেই চরম কৌতূহলে রয়েছে দেশ। কেন্দ্রের তরফেও কোনও বিবৃতি এখনও পর্যন্ত না মেলায় আতঙ্ক ধীরে ধীরে গ্রাস করছে দেশবাসীদের।

Source: The Daily Sun