কেন মা-বাবার কথায় গুরুত্ব দেবেন? রইল ৬টি কারণ

dreamstime_xs_174333545
© Paulus Rusyanto | Dreamstime.com

সম্ভবত আমাদের পিতামাতা এবং বয়ষ্ক আত্মীয়স্বজনরা আজকের যুগে আমরা যা যা করছি সে সম্পর্কে সচেতন নন। এমন অনুভূতিটা কিছুটা হলেও সত্য। তবে আমাদের প্রবীণরা আমাদের সম্পর্কে অন্য কারও চেয়ে ভাল জানেন। কারণ, তারা আমাদের সাথে কোনো শিক্ষক, প্রশিক্ষক বা এমনকি আমাদের বন্ধুদের চেয়েও অনেক বেশি সময় কাটিয়েছেন।

যদি আমরা তাদের কাছে আমাদের সমস্যাগুলি বোঝানোর জন্য যথেষ্ট ধৈর্য্য ধরে থাকি তবে তারা তাদের জ্ঞানের সাথে তাদের দীর্ঘ জীবনের অভিজ্ঞতা একত্রিত করে আমাদেরকে কিছু পরামর্শ দিতে পারেন।

আপনি হয়ত বিষয়টি নিয়ে শংকিত হচ্ছেন বা এড়িয়ে যাওয়ার কথা ভাবছেন, এজন্য এখানে পিতামাতার পরামর্শ গ্রহণের ৬টি কারণ তুলে ধরা হল এবং কিছু পরামর্শও দেওয়া হল যেগুলি আপনাকে বিষয়টি সহজভাবে বুঝতে সাহায্য করবে।

১ – এই পর্যায়টি তারা পার করে এসেছেন

সম্ভবত, আপনি যে ভুল পথে পা বাড়াচ্ছেন সেটি হয়ত তারা করেননি। তবে তারা এমন কাউকে হয়ত দেখেছেন যারা এরকম কোনো ভুল করেছিল। কখনও কখনও আমাদের নিজের ভুল থেকে শিক্ষাগ্রহণ করা আমাদের জন্য অপরিহার্য হয়, তবে কোনো প্রবীণ যদি ভুল হওয়ার পূর্বেই আমাদেরকে সতর্ক করে দেন তবে এর দ্বারা শিক্ষাগ্রহণও হয়, আর ভুল থেকে বেঁচে ত্থেকে ক্ষতির হাত থেকেও বাঁচা যায়।

২ – তারা বিষয়গুলি আলাদাভাবে দেখেন – এবং এটি ভাল হতে পারে!

আপনার প্রবীণদের বিচার আপনার মত নয়, যা আপনার সর্বোত্তম বন্ধুর প্রতি আপনার অনুভূতির উপর ভিত্তি করে অথবা আপনার সহকর্মীরা কী ভাবতে পারে তার উপর ভিত্তি করে আপনি করে থাকেন। তাদের এই পরিস্থিতি থেকে সুস্থ বিচ্ছিন্নতা রয়েছে। যার কারণে তারা অন্য কোনো দিক থেকে বিষয়গুলির দিকে নজর দিতে পারেন। তারা হয়ত এমন কোনো সুযোগ ও সমাধান দেখতে পাবেন যা আপনি কখনও কল্পনাও করতে পারেন নি।

৩ – প্রবীণদের সাথে আপনার সম্পর্কের কেবল উন্নতি ঘটবে

এটি আপনার প্রবীণদের কথা শোনার সত্যই একটি অপ্রত্যাশিত দিক। তাদের পরামর্শ শোনার সহজ কাজটি হল তাদের প্রতি আপনার সম্মানের লক্ষণ। পরবর্তীতে এই সম্মানবোধ তাদেরকে আপনার সাথে আরও ভালভাবে সংযুক্ত করবে। এটি সত্যই তাদের সাথে আপনার সম্পর্কের উন্নতি ঘটায় এবং আরও ভাল বিনিময়ের পথ তৈরি করে।

৪ – তারা আপনাকে অন্য কারও চেয়ে বেশি ভালবাসে

এই কথাটি প্রকৃতপক্ষেই সত্য। তারা সর্বদাই আপনার ভালো চাই এবং তাদের সকল পরামর্শ এটি প্রতিফলিত করে যে, তারা আপনাকে কতটা ভালবাসে।

৫ – কোনো আফসোস হবে না

আপনি যদি প্রবীণদের কথা শোনেন এবং তাদের আন্তরিক পরামর্শ গ্রহণ করেন, তবে আশা করা যায় কোনো কাজের জন্য আপনাকে আফসোস করতে হবে না।

৬ – পিতামাতার বাধ্যগত হওয়া আপনাকে জান্নাতে নিয়ে যাবে

পিতামাতার কথা মেনে চলা ও তাদেরকে সম্মান করা জান্নাতে প্রবেশের একটি মাধ্যম। আবু হুরায়রা (রাযিঃ) থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম একদিন বললেন,

“ঐ ব্যক্তি ধ্বংস হোক। ঐ ব্যক্তি ধ্বংস হোক। ঐ ব্যক্তি ধ্বংস হোক।” এ কথা শুনে কেউ জিজ্ঞাসা করল, “কে, ইয়া রাসূলুল্লাহ?” তিনি তখন বললেন, “ঐ ব্যক্তি যে তার পিতামাতা উভয়কে বা যেকোনো একজনকে তাদের বৃদ্ধাবস্থায় পেল কিন্তু তাদের খেদমত করে জান্নাত হাসিল করতে পারল না।” (মুসলিম)

পিতামাতাকে সম্মান করা এবং তাদেরকে মান্য করা এই পৃথিবীতে তাদের মাধ্যমে আসার জন্য তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করার একটি উপায়।

আল্লাহ তা’আলা বলেন,

আর আমি মানুষকে তার পিতা-মাতার সাথে সদ্ব্যবহারের জোর নির্দেশ দিয়েছি। তার মাতা তাকে কষ্টের পর কষ্ট করে গর্ভে ধারণ করেছে। তার দুধ ছাড়ানো হয় দু’বছর বয়সে। নির্দেশ দিয়েছি যে, আমার প্রতি ও তোমার পিতা-মতার প্রতি কৃতজ্ঞ হও। অবশেষে আমারই নিকট ফিরে আসতে হবে। (সূরা লুকমান: আয়াত-১৪)

প্রবীণদের পরামর্শ থেকে পুরোপুরি উপকৃত হওয়ার জন্য এই পরামর্শগুলির অনুশীলন করতে পারেনঃ

১ – তাদের পরামর্শের স্পষ্টতা জিজ্ঞাসা করুন। ধৈর্য্য ধরুন, এটির মূল্যায়ন হবে।

২ – তাদের কথার মাঝে বাধা দেবেন না। কারণ, প্রকৃতপক্ষে তারা কিছু বলার আগে আপনি জানেন না যে, তারা কী আসলে কি বলতে চান। তাই ধৈর্য্য ধরে শুনুন এবং তারপরে সাড়া দিন।

৩ – আপনার শরীরের অঙ্গভঙ্গিকে নিয়ন্ত্রণ করুন। এমন যেন না হয় যে, আপনার তাকানোর ভঙ্গি, কথার ভঙ্গি বা অমনোযোগিতা তাদেরকে আপনার প্রতি বিতৃষ্ণ করে তোলে।