কৈশোরে মানসিক স্বাস্থ্যের অবনতি? মনে রাখুন এই দ্বীন

ID 150083855 © Thanakorn Suppamethasawat | Dreamstime.com
Fotoğraf: ID 150083855 © Thanakorn Suppamethasawat | Dreamstime.com

উচ্চ বিদ্যালয়ে আমার কাটানো সময় সম্পর্কে আমি যতটা পারি চিন্তাভাবনা এড়ানোর চেষ্টা করি। এটা খুবই কষ্টকর ছিল। এমন অনেক লোক আছে যাদের উচ্চ বিদ্যালয়ের বছরগুলো ভাল ছিল না। আমি মনে করি যে উচ্চ বিদ্যালয়ে সবচেয়ে খারাপ অভিজ্ঞতা আছে এমন লোকদের তালিকায় খুব সহজেই আমি একটি জায়গা পেতে পারি। সেই সময়কালে, আমি সত্যিই অনেক সংগ্রাম করেছিলাম।

আমি জানি আমার নেতিবাচক অভিজ্ঞতাগুলি শেয়ার করার বিষয়ে আমাকে সতর্ক হওয়া দরকার। আমি “আমি তোমার চেয়ে বেশি নিপীড়িত হয়েছি” এটা জাহির করতে চাই না। এমনটি করা বুদ্ধিহীনতারও পরিচয় হবে। কারণ কেউ আমার থেকেও খারাপ কোনো অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হতে পারে। সুতরাং, প্রত্যেকের অভিজ্ঞতাগুলোই গুরুত্বপূর্ণ।

বিষয়টিতে ফিরে আসা যাক। আমার গুরুতর মানসিক স্বাস্থ্য সংক্রান্ত সমস্যার কারণে উচ্চ বিদ্যালয়ের সময়টি আমার জন্য কঠিন ছিল, যার মধ্যে মানসিক হতাশা এবং উদ্বেগ অন্তর্ভুক্ত ছিল। এই অসুস্থতাগুলির কারণে বাড়িতে নিজের ঘরে সাধারণভাবে আচরণ করাও আমার জন্য কঠিন হয়ে উঠেছিল।  বিষয়টি আরও খারাপ হল, যখন শেষ পর্যন্ত আমি যেসব ওষুধ খাচ্ছিলাম সেগুলো ভুল চিকিত্সা হিসেবে প্রমাণিত হল।

এর ফলশ্রুতিতে, আমার মানসিক চাপ বৃদ্ধি পেল এবং কার্যকর চিকিত্সা না করার ফলে, আমি আতঙ্কিত হয়ে মনে করতাম যে, মানুষ আমার বিরুদ্ধে চক্রান্ত করছে। যদিও এটি কোনো গুপ্তচর কাহিনী ভিত্তিক চলচ্চিত্র বা মনস্তাত্ত্বিক থ্রিলারের মতো শোনায়, তবে আমি সত্যই বিশ্বাস করতাম যে, আমার বিরুদ্ধে কিছু মানুষ তদন্ত, অনুসরণ, এবং ষড়যন্ত্র করছে (যেমনটা মনস্তাত্ত্বিক অসুস্থতায় ভুগছেন এমন অনেক লোকেরাই মনে করে)। আমি কখনও বলতে পারিনি যে, আমি কারও দ্বারা আক্রান্ত হয়েছি। তবে এটি বলা বাহুল্য, আমি খুব ভয় পেতাম এবং আমার পরিবারকে এই সমস্যাটি সম্পর্কে বহুবার চিৎকার করে বলতাম (অন্যান্য মানসিক অসুস্থতার লক্ষণগুলির অভিযোগ করার পাশাপাশি)। এবং তারা আমাকে সান্ত্বনা দিতেন এবং যথাযথ চিকিত্সা ও ডাক্তার পাওয়ার জন্য যথাসাধ্য চেষ্টা করতেন। অবশেষে একাদশ শ্রেণির পরে এমন একজন ডাক্তার পেলাম যার চিকিৎসার মাধ্যমে আমার মনস্তাত্ত্বিক লক্ষণগুলি হ্রাস পেল। এরপর থেকে আমি ভাল অনুভব করেছি। সত্যিই আমাকে এই অবস্থা থেকে যে বিষয়টি বের হতে সাহায্য করেছে তা হল এই দ্বীন।

এই ডাক্তারের চিকিৎসাই আমি অনেকটাই সুস্থ হয়ে উঠেছিলাম কিন্তু আমি উচ্চ বিদ্যালয়ে পড়া বন্ধ করে দিয়েছিলাম কারণ এটি আমার মাথায় প্রচন্ড চাপ ফেলত এবং ক্লাস করা আমার জন্য খুবই কঠিন ছিল।

আজকের দিনে, আমি কলেজের একজন জুনিয়র। যদিও এখনও আমার অনেক মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যা রয়েছে। তবে আমি উচ্চ বিদ্যালয়ের অবস্থা থেকে অনেক ভাল। সত্যিই আমাকে এই অবস্থা থেকে যে বিষয়টি বের হতে সাহায্য করেছে তা হল এই দ্বীন। আজকাল অনেক মানুষই ইসলামকে যথাযথ মর্যাদা দেয় না। ইসলামী বিধিবিধান পালন করতে সবাই অবহেলা করে। তবে প্রকৃত ইসলাম পালন আমাদেরকে ধ্বংস এবং দুর্দশা থেকে উদ্ধার করতে পারে। যদি প্রতিটি মুসলমান মনে রাখতে পারে যে, এই দ্বীন পৃথিবীর অন্য যে কোন শক্তির চেয়ে শক্তিশালী, তারা এটাকে সঠিকভাবে পালন করতে পারবে এবং প্রকৃতপক্ষেই ইসলাম পৃথিবীর সবচেয়ে শক্তিশালী যেমনটি পবিত্র গ্রন্থ আল-কুরআন আমাদেরকে শিক্ষা দেয়ঃ

“যদি আমি এই কোরআন পাহাড়ের উপর অবতীর্ণ করতাম, তবে তুমি দেখতে যে, পাহাড় বিনীত হয়ে আল্লাহ তা’আলার ভয়ে বিদীর্ণ হয়ে গেছে। আমি এসব দৃষ্টান্ত মানুষের জন্যে বর্ণনা করি, যাতে তারা চিন্তা-ভাবনা করে” (আল কুরআন-৫৯:২১)

ইসলাম শক্তিশালী – এটি যে কোনও অসুস্থতা মোকাবেলা করতে পারে, যে কোনও ভাঙা হৃদয়কে সংশোধন করতে পারে এবং যে কোনো ব্যক্তিকে ঝামেলা থেকে উদ্ধার করতে পারে। আমার মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যা নিয়ে স্কুলে পড়াশোনা করা আমার জন্য অনেক কষ্টকর ছিল। তবে আল্লাহ তা’আলা আমাকে এর থেকে পরিত্রাণ দিয়েছেন। কারণ আল্লাহ সর্বশক্তিমান। এবং তাঁর পরিকল্পনাই প্রতিটি পরিস্থিতিতে বাস্তবায়িত হয়। আলহামদুলিল্লাহ।