SalamWebToday নিউজলেটার
Sign up to get weekly SalamWebToday articles!
আমরা দুঃখিত কোনো কারণে ত্রুটি দেখা গিয়েছে:
সম্মতি জানানোর অর্থ, আপনি Salamweb-এর শর্তাবলী এবং গোপনীয়তার নীতি মেনে নিচ্ছেন
নিউজলেটার শিল্প

ক্ষুদিপানা: বিশ্বের সব থেকে দ্রুতহারে বংশবৃদ্ধি করা উদ্ভিদের রহস্যভেদ!

প্রকৃতি ০৯ ফেব্রু. ২০২১
জ্ঞান-বিজ্ঞান
ক্ষুদিপানা
Wolffia globosa or Water Meal , green fresh water algae texture top view for nature plant background. © Amphawan Chanunpha | Dreamstime.com

জীব জগৎ প্রধানতঃ দুই বড় শ্রেণীতে বিভক্ত – উদ্ভিদ আর প্রাণী। আর এই উদ্ভিদ জগতের বিবর্তন বস্তুতঃ প্রাণিজগতের অনেক অনেক আগে। উদ্ভিদেরাই একমাত্র জীব যারা প্রাণিজগতের জীবনধারণের জন্য অক্সিজেনের যোগান দেয়। এবার বিজ্ঞানীদের নজরে সেই উদ্ভিদ জগতের একটি খুব ছোট্ট সদস্য উলফিয়া (Wolffia), যা বাংলায় ক্ষুদিপানা নামে পরিচিত। ক্ষুদিপানা সবথেকে দ্রুতগতিতে বংশবৃদ্ধি করতে পারে।

এতদিন এই ক্ষুদিপানার বংশবিস্তার প্রক্রিয়াটি বিজ্ঞানীদের কাছে ছিল রহস্যজনক। কিন্তু আধুনিক বিজ্ঞানের অগ্রগতির সাথে ‘জিনোম ক্রমবিন্যা’ এর প্রভূত উন্নতির ফলে বিজ্ঞানীরা সক্ষম হলেন ক্ষুদিপানার সম্পূর্ণ জিনগত বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে জানতে। এই ফেব্রুয়ারিতেই Salk Institute এর বিজ্ঞানীদের এই আবিষ্কার প্রথমবারের মত ক্ষুদিপানার অতুলনীয় বৈশিষ্ট্যের উপর আলোকপাত করল। সাথে সাথে জায়গা করে নিল বিখ্যাত Genome Research জার্নালের পাতায়।

কী এই ক্ষুদিপানা এবং তা নিয়ে গবেষণা এত গুরুত্বপূর্ণই বা কেন?

ক্ষুদিপানা হল পরিষ্কার জলে বেড়ে ওঠা একটি ক্ষুদ্র উদ্ভিদ যা আন্টার্কটিকা বাদ দিয়ে পৃথিবীর সমস্ত মহাদেশের নদী-পুকুর-জলাশয়ে দেখতে পাওয়া যায়। অদ্ভুতভাবে এই উদ্ভিদের কোনো মূল থাকে না, থাকে শুধু পেরেকের মাথার সমান সবুজ পাতার দেহ। অস্বাভাবিক দ্রুত গতিতে বংশবৃদ্ধিতে সক্ষম এই উদ্ভিদ মাত্র ১ দিনেই নতুন উদ্ভিদের জন্ম দিতে পারে।

বিজ্ঞানীরা মনে করেন প্রতিদিন বেড়ে ওঠা লোকসংখ্যার বিচারে আগামীদিনে এই ক্ষুদিপানা নিয়ে গবেষণা খাদ্যের জোগানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিতে চলেছে। দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় ক্ষুদিপানা ‘খাইনাম’ নামে পরিচিত। সে দেশ গুলিতে ইতিমধ্যে তা খাদ্য হিসেবে গ্রহণ করা হয়। তাছাড়াও দ্রুত বংশবৃদ্ধি করতে পারে বলে ক্ষুদিপানার জিনোম ক্রমবিন্যাস ঘেঁটে পাওয়া তথ্য দিয়ে এমন উদ্ভিদ তৈরী করা সম্ভব যা দ্রুত বেড়ে উঠবে। উপরন্তু পরিবেশ থেকে কার্বন-ডাই-অক্সাইড শুষে নিয়ে ফিল্টারের মত কাজ করবে।

ক্ষুদিপানাকে বিজ্ঞানীরা বেছে নিলেন কেন ?

Salk Institute এর Plant Molecular and Cellular Biology Laboratory এর বিজ্ঞানী এবং এই গবেষণার মুখ্য গবেষক প্রফেসর টড মাইকেল জানালেন, “বিজ্ঞানের প্রভূত অগ্রগতির পিছনে রয়েছে খুব ক্ষুদ্র অথচ খুবই সাধারণ জীবদের ভূমিকা। আমাদের গবেষণার মূল লক্ষ্য ছিল উলফিয়ার মত ন্যূনতম জটিল উদ্ভিদ বেছে নিয়ে বোঝার চেষ্টা করা যে উদ্ভিদ তৈরী হয় কীভাবে।” ক্ষুদিপানার দ্রুত বংশবৃদ্ধির কারণ নির্ণয়ের জন্য বিজ্ঞানীরা দিন-রাত্রির বিভিন্ন সময়ে পরীক্ষা চালান কোন সময়ে কোন জিন অতিসক্রিয় তা বোঝার জন্য। তাঁরা খুঁজে পান অন্যান্য উদ্ভিদ দের তুলনায় ক্ষুদিপানার ক্ষেত্রে সময়ের সাথে কার্যকরী হয় এমন জিনের সংখ্যা অর্ধেকেরও কম। এমনকি ক্ষুদিপানাতে প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা বা মূলবৃদ্ধির মত অতি গুরুত্বপূর্ণ জিনও অনুস্পস্থিত। মাইকেলের কথায়, “এই উদ্ভিদ যেন শুধুমাত্র অনিয়ন্ত্রিত দ্রুত বৃদ্ধির জন্যই বিবর্তিত হয়েছে। অপ্রয়োজনীয় সমস্ত জিন বিবর্তনের সাথে এই উদ্ভিদ ত্যাগ করে দিয়েছে।”

এই গুরুত্বপূর্ণ আবিষ্কারের ফলে এখন উদ্ভিদের একেবারে প্রাথমিক বৈশিষ্ট্য গুলি সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা পাওয়া যাবে। শুধু তাই নয়, তা কাজে লাগিয়ে শস্যের তথা কৃষিকাজের প্রভূত উন্নতিসাধন সম্ভব হবে। এই আবিষ্কারের গুরুত্ব বোঝাতে Salk Institute এর Genomic Analysis Laboratory এর প্রফেসর জোসেফ একার জানালেন, “এই উদ্ভিদ (ক্ষুদিপানা) সমগ্র উদ্ভিদ জগতের প্রধান বৈশিষ্ট্য গুলি জানার গবেষণায় আদর্শ গবেষণাগার হতে চলেছে, এমনকি কোন জিন উদ্ভিদের কোন বৈশিষ্ট্য পরিচালনা করে তাও ক্ষুদিপানা থেকে জেনে নেওয়া সম্ভব।”