গৃহসজ্জা: কোন দোলনা কিনবেন, কেমনভাবে সাজাবেন

Living Room
ID 96330479 © Katarzyna Bialasiewicz | Dreamstime.com

যেকোনো ঘরেই দোলনা মানিয়ে যায়। ফ্যামিলি লিভিং, ড্রয়িংরুম, শোবার ঘর, শিশুর ঘর, বারান্দা বা করিডর। তবে ছোট ঘরে ঢুকিয়ে দিলেন বিশাল এক দোলনা, তাতেই ঘর সজ্জার বারোটা বাজবে। দরকার একটু বড় জায়গা। বাজারে পাওয়া যায় হরেক রকমের দোলনা। কেমন দোলনা বাছাই করবেন, সেটা নির্ভর করবে ঘরের থিম আর অন্যান্য ফার্নিচারের ধরনের ওপর।

ফ্যামিলি লিভিংরুমের ফার্নিচার কাঠের হলে কাঠের দোলনা বেছে নিন। রট আয়রন বা বেতের ফার্নিচার থাকলে দোলনাও একই রকম নিন। ফ্ল্যাটের করিডর বা লন বড় হলে সেখানেও মানানসই দোলনা রাখতে পারেন। মেটালের বা কাঠের কারুকাজ করা দোলনা এখানে ভালো মানাবে।

পার্কের দোলনা থেকে বাড়ির ছাদের দোলনা দখলের লড়াইটাই ছিল সবচেয়ে আনন্দের। লাইন দিয়ে দাঁড়িয়ে থাকত সব ভাইবোনেরা। আহা! খুনসুটি মাখানো সে কী অপূর্ব সেইসব স্মৃতি! তবে, এখন ছোট ফ্ল্যাট কিংবা বাড়ির অল্প পরিসরে ঘরে দোলনা রাখার জায়গাটাই যেন হারিয়ে গিয়েছে। তবে জানেন কি, অল্প জায়গাতেও যে দোলনা সাজিয়ে অন্দরসজ্জায় আনা যায় পরিবর্তন? রইল টিপস।

কোথায় কীভাবে দোলনা সাজাবেন জানুন

ড্রয়িংরুমে একটু বেশি জায়গা থাকলে দু’জন বসার মতো একটি দোলনা অনায়াসেই রাখতে পারেন। লিভিংরুম ও দোলনা রাখার জন্য মন্দ নয়। তবে ঘরে-বাইরে যেখানেই দোলনা রাখুন কিংবা ঝোলান, তা মজবুতভাবে বসাতে হবে। যাতে দোলনা ছিঁড়ে গিয়ে কোনওরকম দুর্ঘটনার আশঙ্কা না থাকে। ঘরের আকার-আয়তনের ভিত্তিতে বাছুন দোলনা। চাইলে বাচ্চাদের ঘরেও রাখতে পারেন। তবে, এক্ষেত্রে অতি অবশ্যই বাচ্চাদের নিরাপত্তার বিষয়টি মাথায় রাখতে হবে। ঘরের মধ্যে থাকা শিশুর দোলনা যেন সামনে-পিছনে কোনও দিকেই দু’ফুট দূরত্বের বেশি যেতে না পেরে। শিশুর ঘরের দোলনা একটু রংচঙে হলে ভাল। বাড়ির অন্দরে রাখতে হলে অন্যান্য আসবাবের সঙ্গে মানানসই দোলনা রাখুন। এতে রাখা গদি কিংবা কুশান যেন ঘরের সোফা, পর্দার সঙ্গে মানানসই হয়। রট আয়রনের আসবাব থাকলে দোলনাটিও যেন এই একই ম্যাটেরিয়ালের হয়, কিংবা কাঠের আসবাব থাকলে সেক্ষেত্রে বেতের বা হালকা কাঠের দোলনা ব্যবহার করতে পারেন। মেঝে থেকে বেশি উচ্চতায় দোলনা ঝোলাবেন না। হঠাৎ পড়ে গেলে বেদম ব্যথা লাগতে পারে।

বাড়ির বাইরে রাখা দোলনা যেমন হবে

এবার আসি বাইরের কথায়। বাড়ির ছাদে কিংবা ব্যালকনিতেও দোলনা রাখতে পারেন চাইলে। সাধরণত, বারান্দায় অনেকেই বেতের দোলনা ঝোলায়। বেতের দোলনায় বড় কুশন দিয়ে আরাম করে বয়স যায়। ছাদে বাগান থাকলে তার মাঝেই একদিকে ছাউনিযুক্ত দোলনা ঝুলিয়ে দিন। বাড়ির বাইরে দোলনা রাখলে তা রট আয়রনের রাখাই ভাল। এতে রোদ-জল-ঝড়ে নষ্ট হওয়ার ভয় নেই। দোলনার আশেপাশে দু’-চারটে টুল রাখুন। এক্কেবারে উপযুক্ত আড্ডাখানা হয়ে যাবে। দোলনার ফ্রেম সাজাতে পারেন নকল ফুল, পাতা দিয়ে।

ড্রয়িংরুম

বসার ঘরের আসবাবের সঙ্গে মিলিয়েই দোলনাটি কিনুন। আসবাব যদি কাঠের হয়ে থাকে, তাহলে একটু সোনালি আভাযুক্ত কাঠের দোলনা বেছে নিন। কাঠের তৈরি আসবাবের রং যদি হয় কালচে কিংবা মেরুন, তাহলে সেই ধরনের দোলনাই সুন্দর দেখাবে বেশি। একই সঙ্গে খেয়াল রাখুন আপনার সোফা ও পর্দার দিকে। চাইলে পর্দা ও সোফার সঙ্গে মিলিয়ে দোলনায় কয়েকটি কুশন রাখতে পারেন। এতে দোলনাটি ভালো দেখাবে।

শোবার ঘর

অনেকেই শোবার ঘরে দোলনা রাখতে পছন্দ করেন। সে ক্ষেত্রে খেয়াল রাখুন, আপনার শোবার ঘরটি যাতে প্রশস্ত হয়। ঘরের রং, চাদর, পর্দার সঙ্গে মিলিয়ে দোলনা বাছাই করুন। যেমন ঘরের রং যদি হালকা হয়, তাহলে দোলনার কুশন একটু গাঢ়ো রঙের বেছে নিন। এতে একটু বৈপরীত্যও আসবে।

শিশুদের ঘর

শিশুদের ঘরের দোলনা যাতে অন্য আসবাবের চেয়ে একটু নিচু হয়, সে বিষয়ে খেয়াল রাখুন। যাতে দোলনায় উঠতে গিয়ে তারা পড়ে না যায়। আর আশপাশে সব কিছু নিরাপদ দূরত্বে রাখুন। যাতে দোল খেতে গিয়ে ধাক্কা না লাগে। ছোট বাচ্চার দোলনা কেনার সময় কলকবজা ঠিকঠাক লাগানো আছে কিনা ভাল করে দেখে নিন।বাচ্চার দোলনায় দড়ি ঝুলিয়ে রাখলে দেখবেন তা যেন বাচ্চার নাগালের বাইরে থাকে।

বারান্দা কিংবা ছাদ

এবার একটু খোলামেলা স্থানে আসা যাক। বারান্দা বড় হলে কাঠের বা লোহার দোলনা ব্যবহার করুন। বারান্দা যদি ছোট হয়, তাহলে বাঁশের বা বেতের দোলনা তো রয়েছেই। সে ক্ষেত্রে এমন দোলনা কিনুন, যা একজনের বসার জন্যই উপযোগী। খোলা ছাদে তো অবশ্য একটু জায়গা পাবেনই। সেখানে ইচ্ছামতো দোলনা ব্যবহার করতে পারেন। তবে ছাদের পরিচ্ছন্নতা এবং গাছের সমারোহের দিকে খেয়াল রাখুন।
লক্ষ রাখুন
♦ ছাদে বা বাড়ির আঙিনায় দোলনা রাখলে এর ওপর ছাউনির ব্যবস্থা করে নিন। যাতে রোদ-বৃষ্টিতে শখের দোলনার কোনো ক্ষতি না হয়।
♦ দোলনায় বসার আসনটি যাতে আরামদায়ক হয়।
♦ বসার ঘরের ক্ষেত্রে টেলিভিশন দেখা যায় এ রকম স্থানে দোলনাটি রাখুন। যাতে দোলনায় বসেও আপনি টেলিভিশন দেখতে পারেন।
♦ বাচ্চাদের দোলনা কেনার সময় উচ্চতা অনুযায়ী দেখে কিনুন।
♦ নিয়মিত দোলনা পরিষ্কার করুন। ঝুলঝাড়ু বা বাঁশের দোলনার ক্ষেত্রে পানি দিয়ে পরিষ্কার করে নিন। একই সঙ্গে আসনের ফোম খুলে রোদে দিন।
♦ দোলনার পাশে খালি দেয়াল পাওয়া গেলে সেখানে নকশাদার ফ্রেমের বড় আয়না রাখতে পারেন।
♦ যে ঘরেই দোলনা রাখুন না কেন, দোলনার সঙ্গে মানানসই লম্বাটে, গোল বা চারকোনা রঙিন কুশন দিন। কুশনের কাপড় বেছে নিন ঘরের অন্যান্য কাপড়ের সঙ্গে মিলিয়ে।