ছুটি শিথিলের পরই বাংলাদেশে ৬ হাজার ৫১২ জন করোনায় আক্রান্ত

বিশ্ব Tamalika Basu ০৭-মে-২০২০
terrified Asian doctor of Coronavirus
© Martinmark | Dreamstime.com

মহামারি করোনাভাইরাসে বাংলাদেশে গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন আরও ৭০৬ জন। ফলে দেশে করোনায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা হয়েছে ১২ হাজার ৪২৫। এছাড়া ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন আরও ১৩০ জন। সবমিলিয়ে সুস্থ হয়েছেন এক হাজার ৯১০ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় ১৩ জন মারা গেছে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। দেশে সর্বমোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৯৯।

করোনা মোকাবেলার জন্য গত ২৬ মার্চ থেকে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছিল বাংলাদেশ সরকার। এরপর ধাপে ধাপে ছুটি শিথিল করা হয়েছে। আর করোনার যে সংক্রমণের চার্ট, সেটা পর্যবেক্ষণ করলে দেখা যায়, ছুটি যত শিথিল করা হয়েছে, তত করোনা সংক্রমণের হার বেড়েছে।

সবচেয়ে বেশি করোনা সংক্রমণ বেড়েছে গত ১১ দিনে। যেদিন বাংলাদেশের গার্মেন্টস শিল্পসহ কলকারখানাগুলো চালু করা হয়েছিল সেদিন থেকে। ২৬ এপ্রিল থেকে সরকার গার্মেন্টস কারখানাগুলো চালু করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। এই সিদ্ধান্তের পর দিন অর্থাৎ ২৭ এপ্রিল থেকে কারখানাগুলো কার্যত চালু হয়।

২৮ এপ্রিল থেকে বাংলাদেশে করোনা সংক্রমণ বাড়ার প্রবণতা দেখা যায়। গত তিনদিন টানা ৭শ’ এর উপর করোনা রোগী শনাক্ত হচ্ছে। এটা থেকে বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন যে, স্পষ্টতই পোশাক কারখানা খুলে দেওয়া এবং ছুটি শিথিল করার ফলে মানুষের অবাধ চলাফেরার সৃষ্টি হয়েছে। আর এটার নেতিবাচক প্রভাব করোনা সংক্রমণের হার দেখলেই বোঝা যাচ্ছে।

বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত করোনায় মোট সংক্রমিত হয়েছে ১২ হাজার ৪২৫ জন। এর মধ্যে ৬ হাজার ৫১২ জনই ছুটি শিথিল করার পর আক্রান্ত হয়েছে। অর্থাৎ মোট আক্রান্তের অর্ধেকই হয়েছে গত ১১ দিনে।