ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে কাঁচা ছোলা: উপকার পাবেন চটজলদি

স্বাস্থ্যকর খাদ্য ০৬ এপ্রিল ২০২১ Contributor
সুস্বাদু
ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে কাঁচা ছোলা
© Oleg Bannikov | Dreamstime.com

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে কাঁচা ছোলা খাওয়া যে কতটা উপকারী, সম্প্রতি বিভিন্ন গবেষণায় উঠে আসছে সে তথ্য। ছোলা বাঙালিদের কাছ অতি পরিচিত এক খাদ্যোপাদান। লুচি দিয়ে ছোলার ডাল বাঙালির প্রিয় খাবার। ছোলা শুকিয়ে তার খোসা ছাড়িয়ে অর্ধেক করে ছোলার ডাল তৈরি করা হয়। এর পাশাপাশি অনেকে গোটা ছোলা ভিজনোও খেয়ে থাকেন। এই লেখার শিরোনাম দেখে আপনাদের অনেকেরই সকালবেলা ঘুম থেকে উঠে ভিজিয়ে রাখা কল বেরনো কাঁচা ছোলা খাওয়ার অভিজ্ঞতার কথা মনে পড়ে যাবে। ছোটবেলায় বাড়িতে চাচা বা আব্বুরা বলতেন, রোজ সকালে কাঁচা ছোলা ভিজনো খেলে নাকি গায়ে শক্তি হয়! ছোলায় প্রচুর পরিমাণে থাকা প্রোটিন শরীরের শক্তি বৃদ্ধিতে সহায়তা করে তো বটেই, সেই সঙ্গে ওজন কমাতে, হার্টকে সুস্থ রাখতে, কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে, ডায়াবেটিসের মতো ক্ষতিকর রোগ নিয়ন্ত্রণে রাখতেও জুড়ি নেই। আজকে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে কাঁচা ছোলা কত উপকারী, সেই নিয়ে আমরা আলোচনা করব।

ছোলার রকমফের

ছোলা নানারকমের হয়ে থাকে। বড় সাদা রংয়ের একধরনের ছোলা পাওয়া যায়, যেটি কাবুলি চানা বলে পরিচিত। এর পাশাপাশি ছোট আকারের যে ছোলা, তাকে হিন্দি, উর্দুতে ‘কালা চানা’ এবং ইংরাজিতে ‘গ্রাম’ বা ‘বেঙ্গল গ্রাম’ বলা হয়ে থাকে। ভারত, পাকিস্তান, বাংলাদেশ সহ সমগ্র ভারতীয় উপমহাদেশেই ছোলার ব্যবহার জনপ্রিয়।

ছোলার উপকারিতা

ছোলায় প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন থাকে। তাই যারা নিরামিষাশী, তাঁরা শরীরে প্রোটিনের যোগান বজায় রাখতে নিয়ম করে ছোলা খেয়ে থাকেন। এছাড়া ছোলায় ফাইবার, আয়রন ইত্যাদিও পর্যাপ্ত পরিমাণে থাকে। ছোলায় ক্যালোরির পরিমাণ কম থাকে বলে যারা ওজন কমাতে চান, তাঁরা ডায়েটে কাঁচা ছোলা রাখতে পারেন। ফোলেট, ম্যাগনেসিয়াম, জিঙ্ক, পটাশিয়ামের মতো প্রয়োজনীয় পরিপোষকও ছোলায় থাকে। এর সঙ্গে ভিটামিন বি১, বি২, বি৩ ইত্যাদিও কাঁচা ছোলায় উপস্থিত রয়েছে। ২০১৭-তে ‘নিউট্রিশন রিভিউজ’-এ প্রকাশিত হওয়া এক সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, ছোলা ও অন্যান্য ডালজাতীয় শস্য নিয়ম করে খাদ্যতালিকায় রাখলে তা শরীরে প্রয়োজনীয় পুষ্টির যোগান দেয়।

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে কাঁচা ছোলা

২০১৯ সালের হিসেব অনুযায়ী, গোটা পৃথিবীর প্রায় ৯.৩% মানুষ ডায়াবেটিসে ভোগেন। বিজ্ঞানীদের আশঙ্কা, মানুষ সতর্ক না হলে ও খাদ্যাভ্যাসে নিয়ন্ত্রণ না আনলে আগামীদিনে এই সংখ্যা আরও বাড়বে। ডায়াবেটিসের ফলে মানুষের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ ধীরে-ধীরে খারাপ হতে শুরু করে। তাই ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখতে চিকিৎসকরা নিয়ম করে ওষুধ খাওয়ার সঙ্গে-সঙ্গে খাওয়াদাওয়া নিয়ন্ত্রণে রাখতে পরামর্শ দেন। এক্ষেত্রে কাঁচা ছোলা বিশেষ উপকারে লাগে।

ভারতের হায়দ্রাবাদের ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ কেমিকাল টেকনোলজি (আইআইসিটি)-র এক সমীক্ষা অনুযায়ী, শ্বেতসার যুক্ত খাবার খাওয়ার পর ছোলা রক্তে শর্করার মাত্রা হ্রাসে সাহায্য করে। ডায়াবেটিসে আক্রান্ত কোনও ব্যক্তি

যদি খাবার খাওয়ার আগে ৫০ গ্রাম কল বের করা কাঁচা ছোলা খান, তাহলে তাঁর রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা প্রাথমিকভাবে বৃদ্ধি পাবে। কারণ, ছোলায় থাকা প্রোটিন স্বাভাবিকভাবে পরিপাকে বেশি সময় লাগে। তবে গ্লুকোজের এই বৃদ্ধি সাময়িক, কারণ খাবার খাওয়ার পর গ্লুকোজের মাত্রা আবার স্বাভাবিক হয়ে যায়।

প্রাকৃতিক ইনসুলিন কাঁচা ছোলা

ছোলায় থাকা ফাইবার রক্তে গ্লুকোজ শোষণে সহায়তা করে ও রক্তবাহের মধ্যে ধীরে-ধীরে গ্লুকোজের মুক্তি ঘটিয়ে রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখে। আমাদের শরীরে উপস্থিত ইনসুলিন হরমোন রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখার ক্ষেত্রে বিশেষ ভূমিকা পালন করে। কাঁচা ছোলায় থাকা ম্যাগনেসিয়াম এই ইনসুলিনকে নিয়ন্ত্রণ করে, ফলে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে কাঁচা ছোলা সাহায্য করে। তাই কাঁচা ছোলাকে অনেকে প্রাকৃতিক ইনসুলিনও বলে থাকেন।

এর গ্লাইসিমিক ইনডেক্স অত্যন্ত কম, প্রায় আটের কাছাকাছি। তাই ডায়াবেটিসের ক্ষেত্রে একে ‘সুপারফুড’ বলে মনে করা হয়। এই কোনও খাবার খেলে তা রক্তে শর্করার মাত্রাকে কীভাবে প্রভাবিত করবে, তা জানার জন্য গ্লাইসিমিক ইনডেক্স অত্যন্ত জরুরি। যে খাবারের গ্লাইসিমিক ইনডেক্স যত কম, সেই খাবার ডায়াবেটিসের রোগীদের জন্য তত উপকারী। ডাক্তারদের মতে, প্রতিদিন আধকাপ কাঁচা ছোলা নিয়ম করে খেলে আপনি এক সপ্তাহে ডায়াবেটিসকে নিয়ন্ত্রণে আনতে পারবেন।

কাঁচা ছোলার অন্যান্য উপকারিতা

কাঁচা ছোলায় ফ্যাটের মাত্রা খুব কম থাকার কারণে এটি রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রাও নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে। ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণের পাশাপাশি কাঁচা ছোলা শরীরে এনার্জির যোগান দেয়। হাড় ও দাঁত শক্তিশালী করতে, গর্ভবতী মহিলাদের জন্য, চোখের দৃষ্টি ঠিক রাখতে, ত্বক সুন্দর রাখতে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতেও কাঁচা ছোলা কার্যকরী। আপনার রক্তাল্পতা থেকে থাকলে নিয়ম করে কাঁচা ছোলা খেলে উপকার পেতে পারেন।

কীভাবে খাবেন কাঁচা ছোলা?

সাধারণত সকালে উঠে খালিপেটে কল বের করা ছোলা খাওয়ার পরামর্শ চিকিৎসকরা দিয়ে থাকেন। শুধু কাঁচা ছোলা খেতে অসুবিধা হলে অনেকে গুড় দিয়ে থাকেন। এছাড়া নুন, লেবু, পেঁয়াজ, কাঁচালঙ্কা আর চাটমশলা দিয়ে কাঁচা ছোলার মুখরোচক ঝাল-ঝাল চাট বানিয়েও নাস্তায় বা বিকেলের খাবার হিসেবে খেতে পারেন। এতে স্বাদেও ভাল লাগবে, পেটও অনেকক্ষণ ভর্তি থাকবে, আবার উপকারও পাবেন।

তাহলে বুঝতেই পারছেন ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে কাঁচা ছোলা কত উপকারী! তাই রোজ সকালে উঠে এবার কাঁচা ছোলা খাওয়া অভ্যেস করতে ভুলবেন না!