SalamWebToday নিউজলেটার
Sign up to get weekly SalamWebToday articles!
আমরা দুঃখিত কোনো কারণে ত্রুটি দেখা গিয়েছে:
সম্মতি জানানোর অর্থ, আপনি Salamweb-এর শর্তাবলী এবং গোপনীয়তার নীতি মেনে নিচ্ছেন
নিউজলেটার শিল্প

প্রায় ৭৫০ বছর মুসলিম শাসনে ছিল জিব্রাল্টার, আজও রয়েছে তার ধ্বংসাবশেষ

ইউরোপ ০২ ফেব্রু. ২০২১
ফিচার
জিব্রাল্টার
© Typhoonski | Dreamstime.com

লিসবনের চুক্তির (২০০৯) ৫০ নম্বর ধারা চালু হওয়া এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও যুক্তরাজ্যের ব্রেক্সিটের কথোপকথন শুরু হওয়ার পর থেকে, জিব্রাল্টার-এর সার্বভৌমত্বের প্রশ্ন আরও একবার মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে। গত ১৩০০ বছরের ইতিহাসে, জিব্রাল্টারের নিয়ন্ত্রণ কার হাতে থাকবে সেই নিয়ে ১৪টিরও বেশি সংঘাত হয়েছে। তবে বর্তমানে এই এলাকার ৯৬% মানুষ ইউরোপীয় ইউনিয়নের সাথে থাকার পক্ষে ভোট দিয়েছেন, কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী ফাবিয়ান পিকার্দো স্পষ্টই জানিয়ে দিয়েছেন যে, যা-ই হোক না কেন, জিব্রাল্টারের আনুগত্য থাকবে যুক্তরাজ্যের প্রতিই।

জিব্রাল্টার নামকরণের ইতিহাস

জিব্রাল্টারের সার্বভৌমত্ব নিয়ে এই বিতর্ক চলছে, এবং এই ব্রিটিশ উপদ্বীপের প্রকৃতি নিয়ে বহু আলোচনা হওয়া সত্ত্বেও, এই এলাকায় মুসলমানদের ঐতিহ্য নিয়ে খুব বেশি চর্চা করা হয় না। জিব্রাল্টার হল স্পেনের দক্ষিণ প্রান্তে অবস্থিত একটি ছোট্ট উপদ্বীপ অঞ্চল, যা বর্তমানে ব্রিটিশ সমুদ্র পাড়ের অঞ্চল হিসেবে অন্তর্ভুক্ত। এই এলাকা প্রাথমিক ভাবে হিস্পানিয়ার ভিজিগথিক সাম্রাজ্যের অংশ ছিল, এবং তা সরাসরি রোমান সাম্রাজ্যের নিয়ন্ত্রণাধীন ছিল। মধ্যযুগে এই এলাকায় মুসলমানেরা প্রথম বসতি স্থাপন করে। ৭১১ সালের ২৭ এপ্রিল, উত্তর আফ্রিকার এক যাযাবর গোষ্ঠীর নেতা তারিক ইবনে-জিয়াদ, জিব্রাল্টারে এসে পৌঁছন। এই স্মরণীয় এবং ঐতিহাসিক ঘটনাই ছিল, এই স্পেনীয় উপদ্বীপ অঞ্চলে মুসলিমদের ৭০০ বছরের রাজত্ব শুরুর ইতিহাসের প্রারম্ভ। এরপরে ৭৫১ বছর এখানে মুসলিমদের শাসন কায়েম ছিল। এই অঞ্চলের নামকরণ করা হয়েছিল জেনারেল তারিকের নাম অনুসারে, তারিকের পর্বত (আরবী ভাষায় জাবাল তারিক), যা পরবর্তী কালে জিব্রাল্টার নামেই পরিচিত।

মুসলিম শাসনের পতন

চতুর্দশ শতকের শেষের দিকে, যখন জিব্রাল্টারে মুসলিম শাসন শেষ পর্যায়ে পৌঁছেছিল তখন এখানে ফের স্পেনের শাসন প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৭১৩ সালে শেষ পর্যন্ত এই এলাকার শাসনভার গ্রহণ করে ব্রিটিশরা। আজ পর্যন্ত, জিব্রাল্টারের দখল নিয়ে যুক্তরাজ্য এবং স্পেনের মধ্যে একাধিক বার সংঘাত হয়েছে। ৭১১ সাল থেকে, জিব্রাল্টার উমাইয়া খিলাফতের অংশ ছিল। দীর্ঘ কয়েক শতক ধরে এই এলাকার সার্বভৌমত্ব নিজেদের দখলে রাখার জন্য বিভিন্ন আন্তর্জাতিক শক্তি নিজেদের মধ্যে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়েছে, তার মূল কারণ হল এর ভৌগলিক অবস্থান, আফ্রিকার সাথে ইউরোপের যাতায়াতের মাধ্যম হল এই জিব্রাল্টার। প্রাথমিক ভাবে জিব্রাল্টার উমাইয়া খিলাফতের অংশ হলেও, পরবর্তী কালে তা উমাইয়া খিলাফতের স্পেনীয় শাখা, যাদের অধীনে কর্ডোবা ছিল, তাদের হাতে চলে যায়।

কর্ডোবার খিলাফতের আরও একটি ছোট অংশ তাইফা সাম্রাজ্য হিসেবে স্বাধীন ভাবে শাসনকার্য শুরু করলে, জিব্রাল্টার সেভিলের তাইফা শাসকদের নিয়ন্ত্রণে চলে আসে। ১০৬০ সাল নাগাদ, আলমোরাভিদ নামের একটি আফ্রিকান বংশ জিব্রাল্টারের দখল নিতে উদ্যত হয়। ১০৮৬ সালে স্পেনের লিওনের খ্রিস্টান রাজা সপ্তম আলফোনসো এবং অ্যারাগনের রাজা প্রথম আলফোনসোর যৌথ আক্রমণ থেকে জিব্রাল্টারকে রক্ষা করার জন্য তাইফা সম্রাট এই আলমোরাভিদদের সাহায্য প্রার্থনা করেছিলেন।

ক্যাস্টিলিয়ানদের সঙ্গে সংঘর্ষ

১৩০৯ সালে ক্যাস্টিলিয়ানরা জিব্রাল্টার দখল করে নেয়। সেই সময় ১১২৫ জন মুসলিম এখানে বসবাস করতেন। এই যুদ্ধের পরে, শহরের মুসলমান এবং ইহুদি বাসিন্দাদের উচ্ছেদ করা হয়। ক্যাস্টিলের নতুন রাজা নির্দেশ দেন, জিব্রাল্টারের প্রতিরোধ উন্নত করার জন্য কঠোর বন্দোবস্ত করতে, যাতে ভবিষ্যতে মুসলমিদের আক্রমণ এড়ানো যায়। এরপরে প্রায় ২০ বছর এখানে ক্যাস্টিলিয়ানদের শাসন ছিল। এরপরে গ্রানাডা এবং মরক্কোর সুলতান ১৩৫৩ সালে যৌথ ভাবে জিব্রাল্টার আক্রমণ করেন, এবং জিব্রাল্টার পুনরায় মুসলিমদের দখলে আসে। আবু আল-হাসান এই সময় জিব্রাল্টারের সেনাবাহিনী ঢেলে সাজার নিদান দিয়েছিলেন, কারণ ক্যাস্টিলিয়ানরা এই এলাকা ফের দখল করার জন্য বার বার আক্রমণ করতে থাকে।

জিব্রাল্টার কার অধীনস্থ?

আজও জিব্রাল্টারের দুর্গের কিছু নিদর্শন এবং কিছু মুসলমান স্থাপত্যের নিদর্শন দেখা যায়। এর মধ্যে রয়েছে মুরীশ স্নানাগার, একটি মসজিদ, যা পরবর্তী কালে একটি চার্চে রূপান্তরিত করা হয়েছে, একটি কাসবা – যাকে ভিলা ভিয়েজা ওল্ড ইংলিশ টাউন নামেই লোকে চেনে। ১৪৬২ সালে যখন স্পেনীয়রা পুনরায় জিব্রাল্টার দখল করে, তখন মুসলিম ও ইহুদি নাগরিকরা শেষ পর্যন্ত আত্মসমর্পণ করে এবং তাদের উচ্ছেদ করে সেখানে স্পেনীয় খ্রিস্টানরা বসতি স্থাপন করে। কিছু সময়ের জন্য জিব্রাল্টার অস্ট্রিয়ার দখলে ছিল। তবে স্পেনের উত্তরাধিকারের লড়াইয়ের সময় এটি হাডসবুর্গ কর্তৃত্বের অধীনে আসে।

ইউট্রেক্টের চুক্তি অনুযায়ী ১৭১৩ সালে জিব্রাল্টার ব্রিটিশদের দখলে আসে। দীর্ঘ কয়েক শতক ধরে জিব্রাল্টার নিজেদের অধীনে রাখা নিয়ে বিভিন্ন শক্তি নিজেদের মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতা চালিয়ে গিয়েছে। বর্তমানে জিব্রাল্টার একটি স্বশাসিত দেশ, তাদের নিজেদের পার্লামেন্টও রয়েছে। তবে এখনও তাদের বিদেশ নীতি ও প্রতিরক্ষার দায়িত্ব ব্রিটিশ সরকারের উপরেই রয়েছে।