বদহজমে ভুগছেন? বানিয়ে ফেলুন আদা লবঙ্গের চা

ginger clove tea
ID 57374682 © Alexander Raths | Dreamstime.com

আমাদের প্রত্যেকদিনের অনিয়মিত জীবনযাত্রায় গ্যাস, বদহজম নিত্যদিনের সঙ্গী। এই সমস্যায় সবচেয়ে বেশি উপকারি আদা লবঙ্গ যা আমরা অতি সহজেই হাতের কাছে পেয়েও যাই। আদাতে থাকে এনজাইম  ও জারক রস যা আমাদের শরীরে গ্যাস ,বুকজ্বালা সমস্যা ইত্যাদি দূর করে। এছাড়াও আদাতে থাকে অ্যান্টি ইনফ্লেমটারি নামক উপাদান। এটিও বদহজম, বমি বমি ভাব দূর করে। প্রত্যেক  দিন তাই দু থেকে তিন বার আদা কুচি  চিবিয়ে খাওয়ার পরামর্শ  দেওয়া হয়। আদা সর্বগুণ সম্পন্ন হওয়ায় চিকিৎসকরা অনেক সময় ওষুধের  পরিবর্তে  এই ভেষজ উপাদান  খাওয়ার পরামর্শ  দেন। আদা বহুল প্রচলিত ঘরোয়া একটি উপাদান। ভিটামিন A,ভিটামিন  C,ভিটামিন B কমপ্লেক্স  সমৃদ্ধ এই খাদ্যের প্রতি  ১০০ গ্রামে থাকে ৮০গ্রাম ক্যালরি, ১৭গ্রাম কার্বোহাইড্রেট, ০•৭৫গ্রাম ফ্যাট, যা গ্যাসের  মোক্ষম  ওষুধ। এর পর আসি, গ্যাসের  সমস্যার আর এক অব্যর্থ ওষুধ  লবঙ্গে। লবঙ্গে থাকে অনেক কার্যকর উপাদান  যেগুলো  আমাদের শরীরে প্রবেশ করে গ্যাস বদহজম বুকজ্বালা কমিয়ে দেয়। অতিরিক্ত খাবার পর দু তিনটে লবঙ্গ  চুষে খেয়ে নিলে আরাম পাওয়া যায়। মাইক্রোবায়টিক নিউট্রশিনস্ট অরোরার মতে লবঙ্গে  থাকে আমাদের শরীরের পুস্টি উপাদানক ভাঙতে সাহায্য করে। এর ফলে বদহজমের সম্ভাবনা কমে যায় অনেকসময় তাই রান্না সাথে তাই লবঙ্গ  মিশিয়ে দেওয়া হয়।

কীভাবে বানাবেন আদা লবঙ্গের চা

মাথা ধরা থেকে বদহজম আমরা সবসময় যেটা খুঁজি তার নাম চা।বাড়িতে আমরা প্রথমেই তৈরি করি ফেলি  আদা লবঙ্গের  চা।এটি বানাতে গেলে আপনাকে গরম জলে পাঁচ মিনিট ফুটিয়ে  নিতে হবে লবঙ্গকে । এরপর একে একে সেই জলে চা চিনি মেশানোর পর নামানোর সময় একচামচ আদা কুচি দিয়ে একটু ফুটিয়ে নিয়ে নামিয়ে নিলেই হয়ে যায় আদা লবঙ্গের  চা যা আমাদের গ্যাস  থেকে হওয়া শারীরিক অস্বস্তিগুলো দূর করবে।

অতিরিক্ত মশলাদার খাবার খাওয়ার পর আমরা দিনে দু থেকে তিন বার আদা লবঙ্গের চা খেতেই পারি। আদা লবঙ্গ একসাথে শরীরে গিয়ে পরিপাকতন্ত্রকে পরিষ্কার রাখে।

আদার অন্যান্য উপকারিতা

হজম নিরাময়ে আদার জুড়ি মেলা ভার। আমাদের দৈনন্দিন খাদ্যের তালিকায় আদাকে ঢোকাতে পারলে কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে শুরু করে পরিপাকযন্ত্রে জমে থাকা গ্যাস নির্মূল করে। ক্লান্তি অবসাদ থেকে মুক্তি দিয়ে শরীর ও মনের সতেজতা বৃদ্ধি করে। দেহকে ঠান্ডা লাগা থেকে বাঁচাতে আদা অত্যন্ত কার্যকরী,এর পাশাপাশি রক্ত সঞ্চালন,দেহে জমে থাকা বিষাক্ত বর্জ্য অপসারণ এ (WHO দ্বারা স্বীকৃত),যেকোনো ব্যথা থেকে মুক্তি দেয়। অসটিও আথ্রাইটিস, রিডমাটয়েড আথ্রাইটিস ও কোলন ক্যানসারের মতো ক্ষতিকর রোগের দারুণ প্রতিষেধ এই আদা।সর্দিকাশি ও শ্বাসপ্রশ্বাস জনিত সমস্যায় এটি দারুণ কাজ করে।

লবঙ্গের অন্যান্য  উপকারিতা

আদার মতো লবঙ্গ ও এক দারুণ ঔষধি। এটি রান্নার পাশাপাশি শরীরের নানা রোগের উপশম করে।দু একটি লবঙ্গ দাঁতের ব্যথা,মাড়ি ফোলা বা দাঁতজনিত অন্যান্য সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে পারে।এছাড়া সর্দি-কাশি বা অ্যাসমাজনিত সমস্যা নিমিষে দূর করে,জ্বরের প্রকোপ থেকে বাঁচায়। দেহের উষ্ণতা সৃষ্টিতেও লবঙ্গ খাওয়া হয়। লবঙ্গে উপস্থিত অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট লিভারের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি করে। লবঙ্গ অ্যান্টিপ্রোপালিজে পরিপূর্ন হওয়ায় সহজেই জীবাণুনাশ করে,যেকোনো রকম ইনফেকশন থেকে রক্ষা করে। ত্বকের সংক্রমণ ও সাইনাস সংক্রমণে লবঙ্গ কার্যকরী।

আমাদের এই দ্রুত জীবনযাত্রায় গ্যাস বদহজম শারীরিক অস্বস্তি জীবনকে গ্রাস করে। এর থেকে মুক্তি পেতে আদা লবঙ্গের  জুড়ি মেলা ভার। এদের একাধিক  গুণাবলী থাকায় আমাদের শরীরেও একাধিক কাজ করে যা বিভিন্ন প্রাচীন গ্রন্থে প্রমাণিত। এগুলি আমাদের বাড়িতে আমরা সবসময় হাতের কাছেই পেয়েও যাই। কোনোরকম পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া  ছাড়া দ্রুত  কাজ করে তাই ওষুধের পরিবর্তে এটিই আগে খাওয়া হয়।