বিশ্বের সবচেয়ে পুরানো ডেজার্ট: আশুর বা শস্যের পুডিং

Asure turkish pudding

আপনি হয়ত আজকাল আশুর বা আশুরা শব্দটি খুব বেশি শুনতে পাচ্ছেন, এটি একটি সুস্বাদু পুডিং যাতে প্রায় রান্নার সকল উপাদানের সমাহার দেখা যায়। যাই হোক, আমরা এখন এই মুখরোচক খাবার এবং এটির পিছনের ইতিহাস নিয়ে অল্পবিস্তর আলোচনার প্রয়াস পাব।

এটিকে অনেকসময় আশুর বা আশুরা নামে নামকরণ করা হয়। অন্যথায় এটি নুহের পুডিং নামেই অধিক পরিচিত। এটি আর্মেনিয়া থেকে উদ্ভুত তুর্কিদের পছন্দনীয় একপ্রকার মিষ্টি জাতীয় খাবার, যার পিছনে রোমাঞ্চকর একটি ইতিহাস আছে। বিশ্বের প্রাচীনতম ডেজার্ট হিসাবে পরিচিত এই মুখরোচক খাবারটি। নুহ নামে একজন তুর্কি কিংবদন্তী যাকে অনেকেই মুসলমানদের নবী নূহ (আঃ) বলে আখ্যায়িত করে থাকে, প্রথম এই পুডিং টি তৈরি করেছিলেন। তাই তার নাম অনুসারে অনেকে এটিকে ‘নুহের পুডিং’ বলে থাকে। প্রথম নুহের মাধ্যমে এর উৎপত্তি হওয়ার সাথে সাথে এটি ধীরে ধীরে তুর্কিদের কাছে জনপ্রিয় হতে থাকে। যার ফলাফল বর্তমানে এই দাঁড়িয়েছে যে, এটি তুর্কিদের সকলের রান্নাঘরে তো স্থান পেয়েছেই। এর সাথে সাথে বিশ্বের অনেক দেশের খাদ্যপ্রিয় মানুষের খাদ্য তালিকায়ও এটি স্থান করে নিয়েছে।

এই পুডিংটি শুধুমাত্র কেবল একটি স্বাদযুক্ত মিষ্টান্ন খাবারই নয়; বরং তার চেয়েও বেশি কিছু। এটি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির জন্যও একটি ফলদায়ক খাবার; বিশেষত শীতের মওসুমে। যেহেতু এটি গম থেকে তৈরি, তাই এই পুডিং-এ প্রচুর পরিমাণে শর্করা এবং ক্যালোরি রয়েছে যা আপনাকে শীতের দিনগুলিতে খুব সহজেই উষ্ণ রাখে এবং আপনাকে সক্রিয় ও স্বাস্থ্যকর থাকার জন্য প্রয়োজনীয় শক্তির জোগান দেয়। আশুর পুডিং-এর বাদামগুলি আপনার শরীরে আয়রন, ক্যালসিয়াম, ভিটামিন ই এবং ভিটামিন বি সরবরাহ করে, যা শীতের দিনে আপনার শরীরকে দুর্দান্ত রাখতে সাহায্য করে।

তুরস্কে, এই পুডিংটি বিশেষ করে মুহাররম মাসে তৈরি করা হয়, যেটি ইসলামিক বর্ষপঞ্জির প্রথম মাস। তুরস্কে এটি আশুরার মাস হিসেবেও পরিচিত। আরবি মাস হওয়ায় প্রতিবছর নির্দিষ্ট ইংরেজী তারিখে এটি শুরু হয় না। এই মাসটির ১০ম দিন তুর্কি মুসলিমদের কাছে একটি বিশেষ দিন; যেই দিনটির নামও ‘আশুরা’। অনেকের ধারণা মতে, এই দিনে নূহ (আঃ) প্লাবন থেকে রক্ষা পেয়ে আর্মেনিয়াতে অবতরণ করেছিলেন। নূহ (আঃ) এর অবতরণ ছাড়াও অন্যান্য ধর্মীয় কারণেও এই দিনটি মুসলিমদের কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। মুহাররমের ১০ম দিনেই হযরত ইব্রাহীম (আঃ) আগুন থেকে রক্ষা পেয়েছিলেন যাতে তাঁকে ধ্বংস করার জন্য জ্বালানো হয়েছিল; হযরত আদম (আঃ) এর তওবাও এদিন কবুল হয়েছিল; হযরত মূসা (আঃ) এবং তাঁর সম্প্রদায়কে এ দিনেই ফেরআউন ও তার সৈন্যদের থেকে রক্ষা করা হয়েছিল এবং হযরত আইয়্যুব (আঃ) স্বাস্থ্য পুনরুদ্ধারও এ দিনেই হয়েছিল বলে বিভিন্ন দুর্বল রেওয়ায়েতে উলেখ আছে। এছাড়া এ দিনে কারবালার প্রান্তরে রাসূল সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়া সাল্লামের নাতি হযরত হসাইন (রাযিঃ) কেও নির্মম ভাবে হত্যা করা হয়েছিল। এইরকম অনেক ঐতিহাসিক দিনের স্বাক্ষী এই ১০ই মুহাররম বা আশুরা।

এ কারণে মুসলিমদের নিকট এই দিনটি একটি স্মরণীয় দিন হিসেবে আখ্যা পেয়ে থাকে।

আশুরার রেসিপি

এই পুডিংয়ের নির্দিষ্ট কোনো রেসিপি নেই, এই একই প্রকারের পুডিং রান্নার শত রকমের পদ্ধতি আছে। এর যেকোনো একটিকে অনুসরণ করেই আপনি এই পুডিং রান্না করতে পারেন। এই পুষ্টিকর এবং সুস্বাদু পুডিং টি আপনার হাতের কাছে যা আছে তা দিয়েই তৈরি করা হয়। এর প্রধান উপাদানগুলি হল শস্য, গম বা বার্লি, এপ্রিকট নামক একপ্রকার মিষ্টি ফল, কিশমিশ, ডুমুর, পাইন বাদাম, আখরোট, ছোলা এবং মটরশুটি। আপনার পছন্দ অনুযায়ী আপনি কোনটি কি পরিমাণে দিবেন তা নির্ধারণ করে নিবেন। আসল পুডিংটি গোলাপজল দিয়ে তৈরি করা হয়। তবে আপনার কাছে এটি না থাকলে লেবু বা কমলার দ্বারাও আপনি এর চাহিদা পূরণ করতে পারেন। এই সুস্বাদু খাবারটি বানানোর পর আপনার বন্ধু, প্রতিবেশী বা আত্মীয়দের সাথে এটি শেয়ার করতে পারেন। আশা করি আপনার রান্না করা রেসিপিটি যেন সব থেকে মুখরোচক হয়।