বেদুইনের তাঁবুর আকারে তৈরি অনুপম এই মসজিদ

পর্যটন ১৬ জুন ২০২০ Contributor
বেদুইনের
ID 80918519 © Shahid Khan | Dreamstime.com

ইসলামী স্থাপত্যশৈলীর বিস্ময়কর সৌন্দর্য সমগ্র বিশ্বের ইতিহাসেই এক উল্লেখযোগ্য জায়গা করে নিয়েছে। তাঁদেরই নির্মিত মসজিদগুলি এবং অনেক স্থাপত্যশৈলীই হয়ে উঠেছে পর্যটকদের প্রধান দর্শনীয় স্থান। মুসলিম সমাজ সবসময়ই মসজিদ নির্মাণে আগ্রহী ছিল।

আধুনিক মসজিদের স্থাপত্য শৈলীর পূর্ণ বিকাশ এখন খুব বিস্তৃত আকারে বিকশিত হয়েছে এ কথা বলাই বাহুল্য।

তবে তা যতই দুর্দান্ত হোক না কেন, একটি মসজিদ সর্বদা সাধারণ উন্মুক্ত স্থান, প্রশস্ত করিডোর এবং মার্জিত সুসজ্জিত হলগুলির নিপুণ কারুকার্যেই তাঁর দর্শনার্থীকে আমন্ত্রণ জানায়।

মার্বেলের গম্বুজ, প্রশস্ত খিলান, করিডোর এবং মিনারের উপর অর্ধ চন্দ্রাকৃতী কারুকার্য – এই সমস্ত বিভিন্ন মুসলিম সংস্কৃতির এবং প্রতীক। তবে এসব অনেক প্রতীক বর্জন করে পাকিস্তানে গড়ে উঠেছিল এক বিখ্যাত মসজিদ। শাহ ফয়সাল মসজিদ।

বেদুইনের তাঁবুর আকারে ছিল তার বিস্তার।

বেদুইনের তাঁবুর মতো শাহ ফয়সাল মসজিদঃ

পাকিস্তানের বৃহত্তম মসজিদ, যা পাকিস্তানের রাজধানী ইসলামাবাদে অবস্থিত। মসজিদটি ১৯৮৬ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়।

তুর্কি স্থপতি ভেদাত ডালোকে এর ডিজাইন করেন। মসজিদটি দেখতে অনেকটা মরুভূমিতে নির্মিত বেদুইনের তাঁবুর মতো।

বর্তমানে সারা পৃথিবীতে এটি ইসলামাবাদের প্রতীক হিসেবে ব্যবহৃত হয়।

পাকিস্তানের ইসলামাবাদের ফয়সাল মসজিদটি আধুনিক দৃষ্টিভঙ্গির এক দুর্দান্ত স্থাপত্য কীর্তি বলা যেতে পারে।

ফয়সাল মসজিদের অনন্য চেহারাটি আরব বেদুইনের তাঁবু নির্মাণ কৌশল দ্বারা অনুপ্রাণিত। বেদুইনরা আরবের যাযাবর উপজাতি এবং তাঁদের তাড়াতাড়ি এক স্থান থেকে অন্য আর এক স্থানে স্থানান্তরিত হতে হয়।

বলা যেতে পারে তাঁদেরই করা তাঁবুগুলি তাঁদের কঠোর, প্রাকৃতিক জীবনযাত্রার প্রতীক।

সৌদি আরবের বাদশাহ ফয়সাল বিন আবদুল আজিজ তাঁবুর আদলে মসজিদ নির্মাণের এই পরামর্শটি দিয়েছিলেন এবং এই নির্মাণকে পাকিস্তানের লোকদের উপহার হিসাবে প্রদান করেছিলেন (ফয়সাল মসজিদ, এনডি)।

এই মসজিদটি তুরস্কের স্থপতি বেদাত ডালোকে ডিজাইন করেছিলেন যার নকশা ১৯৬৯ সালে অনুষ্ঠিত একটি আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতা জিতেছিল।

যেখানে ১৭ টি দেশের ৪৩ টি নকশার প্রস্তাব জমা দেওয়া হয়েছিল।

এটি কোনও ঐতিহ্যবাহী গম্বুজ বা তোরণ ছাড়া নকশা করা হয়েছিল। ১৯৮৬ সালে এটি সমাপ্ত হওয়ার পরে এটি ১৯৯৩ সাল পর্যন্ত  এই মসজিদটি দক্ষিণ এশিয়ার বৃহত্তম মসজিদ।

বলা যায় ১৯৮৬ থেকে ১৯৯৩ সাল পর্যন্ত মসজিদটি পৃথিবীর বৃহত্তম মসজিদ ছিলো।

পরবর্তীতে মরক্কোর কাসাব্লাঙ্কায় দ্বিতীয় হাসান মসজিদ নির্মাণ হলে ফায়সাল মসজিদ তার অবস্থান হারায়।

বেদুইনের তাঁবুর ন্যায়ই তার গঠনঃ

ফয়সাল মসজিদটি ইসলামাবাদে নির্মিত হয়েছে, যা হিমালয়ের দক্ষিণতম প্রশস্ত অঞ্চল, মার্গলা পাহাড়ের গোড়ায় অবস্থিত।

এটি জমির একটি উঁচু অংশে নির্মিত এবং চারপাশের বিস্তীর্ণ অঞ্চলের জন্য এর দুর্দান্ত দর্শন সত্যিই মনোরম।

তাঁবুর আকারের কাঠামোটি মূল প্রার্থনা হলটিকে আচ্ছাদন করে, যা মার্বেল এবং মোজাইক দ্বারা সজ্জিত এবং এখানে ১০,০০০জন উপাসক জমায়েত করতে পারে।

উঠান এবং বাগিচা ধরলে আড়াই লাখেরও বেশি উপাসককে মসজিদে স্থান দেওয়া যেতে পারে।

এটিতে একটি গ্রন্থাগার, একটি বক্তৃতা হল, একটি যাদুঘর এবং একটি ক্যাফে রয়েছে।

ময়দানে জেনারেল মুহাম্মদ জিয়া-উল-হকের সমাধিসৌধ রয়েছে। মসজিদটি আন্তর্জাতিক ইসলামিক বিশ্ববিদ্যালয়ের পুরাতন ক্যাম্পাস রূপেও ব্যবহৃত হত।

ইসলামী স্থাপত্যের ঐতিহ্যবাহী প্রতীকগুলি ত্যাগ করার জন্য রক্ষণশীল মুসলমানদের দ্বারা ফয়সাল মসজিদটি অনেক সমালোচনার মুখে পড়েছিল।

এই সমালোচনার অবসান ঘটে যখন মসজিদের নির্মাণ শেষ হয় এবং তার সৌন্দর্য্য প্রকাশ পায় জনসমক্ষে।

পাকিস্তানের জাতীয় মসজিদ হিসাবে এটি তরুণ জাতির জন্য জাতীয় গর্বের প্রতীক।

এই মসজিদটি বিদেশিদের পাশাপাশি দেশের অন্যান্য স্থানের পর্যটকদের কাছে একটি জনপ্রিয় স্থান হয়ে ওঠে।