ভারতে অভ্যন্তরীণ বিমান পরিষেবা শুরু, ব্যতিক্রম কলকাতা

বিশ্ব Tamalika Basu ২৫-মে-২০২০
ross-parmly-rf6ywHVkrlY-unsplash
Fotoğraf: Ross Parmly-Unsplash

ভারতে উদ্বেগজনক হারে করোনা সংক্রমণের মাঝে অভ্যন্তরীণ রুটে যাত্রীবাহী বিমান চালুর সিদ্ধান্তে অনেক রাজ্যই তীব্র আপত্তি জানিয়েছে। সেই আপত্তির মাঝেই সোমবার থেকে শুরু হয়েছে অভ্যন্তরীণ বিমান চলাচল। বিমানের ক্রুদের পরতে হচ্ছে পিপিই। আর যাত্রীদের মাস্ক। তবে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের অনুরোধ মেনে ভারতের বেসামরিক বিমান চলাচল মন্ত্রক সোমবার থেকে তিন দিন কলকাতা থেকে কোন বিমান না চালানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। জানা গেছে, আগামী ২৮ মে থেকে ৫ শতাংশ বিমান চালানো হবে কলকাতা থেকে। একই দিনে বাগডোগরা থেকেও বিমান চলাচল করবে। এদিকে বিমান চালানো নিয়ে তীব্র আপত্তি জানিয়েছে মহারাষ্ট্র, কর্ণাটক ও তামিলনাড়ু সরকার।

তারা বিমান চালানো কয়েকদিন বন্ধ রাখতে বলেছিলেন। সংক্রমণের পাশাপাশি লকডাউনে গণপরিবহনের অভাবের ফলে যাত্রীদের যাতায়াতের সমস্যার কথাও তুলে ধরেছিলেন। মহারাষ্ট্রের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অনিল দেশমুখ টুইটারে ভারত সরকারের বিমান চালানোর সিদ্ধান্তকে ‘অতি কুপরামর্শ’ বলে মন্তব্য করেছেন। মহারাষ্ট্রের উদ্ধব ঠাকরে সরকার জানিয়েছে, অন্য রাজ্যের বাসিন্দারা এই মুহূর্তে মহারাষ্ট্রে এলে তা রাজ্যের করোনা-পরিস্থিতিকে আরও জটিল করে তুলতে পারে। মহারাষ্ট্র গোটা দেশের মধ্যে করোনা সংক্রমণে শীর্ষে রয়েছে। তাছাড়া, মুম্বই, পুনে, নাগপুরের মতো বিমানবন্দরগুলি লাল জোনে রয়েছে। তবে রবিবার রাতে জানা গেছে, মুম্বই বিমানবন্দরে মাত্র ২৫টি বিমানের ওঠানামায় অনুমতি দিয়েছে মহারাষ্ট্র সরকার। সংক্রমণের নিরিখে দ্বিতীয় শীর্ষে থাকা রাজ্য তামিলনাড়–ও অভ্যন্তরীণ বিমান চালানোয় আপত্তি জানিয়েছিল। পরিবহন ব্যবস্থা বন্ধ থাকায় যাত্রীদের দুর্দশা বাড়বে বলে জানিয়েছে তামিলনাড়ু সরকার। ঘূর্ণিঝড় আমপান-বিধ্বস্ত কলকাতায় বিমান চলাচল কয়েকদিনের জন্য পিছনোর আর্জি জানিয়েছিলেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়