ভোটের আগে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ ট্রাম্পের

বিশ্ব Tamalika Basu ২৯-মে-২০২০
Presiden Trump © Guido Parmiggiani | Dreamstime.com

ফেসবুক, টুইটারসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোর জন্য একটি নির্বাহী আদেশ সই করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার এই আদেশে স্বাক্ষর করেন তিনি।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, এই নির্বাহী আদেশের কারণে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো কিছু আইনগত সুরক্ষা হারাবে।

এছাড়া ওই আদেশে ফেসবুক-টুইটারের মতো সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলোর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার বিষয়টিও অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। তবে ট্রাম্পের এই নির্বাহী আদেশ আইনগত চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে পারে বলে বিবিসির খবরে বলা হয়েছে। প্রসঙ্গত, মহাকাশ কেন্দ্রের উদ্দেশে নভোচারীসমেত মহাশূন্যযান উৎক্ষেপণের দৃশ্য দেখতে মঙ্গলবার ওয়াশিংটন থেকে ফ্লোরিডায় উড়ে যাওয়ার সময় ট্রাম্প টুইটার ও অন্য সামাজিক মাধ্যমগুলোর সমালোচনা করেন। এমনকি এদিনও তিনি টুইটারেই সামাজিক মাধ্যমগুলো নিয়ে সমালোচনা করেছেন।

তিনি লিখেছেন, ‘২০২০ সালের নির্বাচনের আগেভাগেই সেন্সর করার জন্য বড় প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের ক্ষমতার দাপট দেখানো শুরু করেছে। যদি তা ঘটতে থাকে, তা হলে আমাদের স্বাধীনতা বলে আর কিছুই থাকবে না। আমি কখনই এটা হতে দেব না। তারা ২০১৬ সালেও অপচেষ্টা চালিয়েছিল এবং ব্যর্থ হয়েছিল। এখন তারা পুরাই উন্মাদ হয়ে উঠছে। চোখ রাখুন!!!’

টুইটারে ট্রাম্পের আট কোটির বেশি অনুসারী (ফলোয়ার) রয়েছে।

২০১৬ সালের নির্বাচনে ৩০ লাখ ভোট বেশি পেয়েও ইলেক্টোরাল কলেজের ভোটে ট্রাম্পের কাছে হেরে যান হিলারি ক্লিনটন। ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের ৪৫তম প্রেসিডেন্ট হিসাবে ২০১৭ সালের ২০ জানুয়ারি ক্ষমতা গ্রহণ করেন। এদিকে, সম্প্রতি প্রথমবারের মতো ট্রাম্পের পোস্টকৃত দুটি টুইটে ফ্যাক্ট চেক ট্যাগ লাগিয়ে দেয় টুইটার। এরপরই যুক্তরাষ্ট্রে সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলো বন্ধ করে দেওয়ার হুমকি দেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। হুঁশিয়ারি দেওয়ার একদিন পর ওই নির্বাহী আদেশে সই করলেন ট্রাম্প।