মনের প্রশান্তির জন্য কেন ভ্রমণের প্রয়োজন নেই

Horse Riding
Woman riding a horse with hijab by the beach. Muslim woman in hijab sitting on horseback, a horse man directs beside the Caspian Sea. Horseback riding in Iran. Blue sky. Sunny day.

ছুটির দিনগুলিতে সমুদ্র সৈকতে শুয়ে থাকা, নীল আকাশের দিকে তাকিয়ে থাকা এবং বাতাসের সাথে সমুদ্রের উপচে পড়া ঢেউ এর শব্দ শুনতে থাকা ইত্যাদির থেকে আর কোনোকিছুই আমার কাছে অত্যধিক পছন্দনীয় ছিল না। আমার কাছে তা জান্নাতের মত ছিল।

আমি নিজেকে নিয়ে খুব প্রশান্ত এবং স্বচ্ছন্দ বোধ করছিলাম। আগামীতে কী  হবে তা আমার কোনো চিন্তা ছিল না বরং সর্বদা আমি আনন্দ-ফূর্তিময় জীবন উপভোগ করছিলাম।

যাইহোক, ছুটির দিনগুলির শেষ প্রান্তে পৌঁছার সাথে সাথে আমার অনুভূতি পরিবর্তন হয়ে গেল। ভাবছিলাম আমি আমার মনের সেই সুন্দর জায়গাটি থেকে ছিটকে পড়ব এবং আবার ব্যস্তময় জীবনে ফিরে আসব। নিরিবিলি সমুদ্র সৈকতে কাটানো এই দিনগুলো আমার কাছে দূরের কোনো স্মৃতি ছাড়া আর কিছুই মনে হচ্ছিল না। এভাবেই জীবন আমার বার্ষিক ছুটিকে কেন্দ্র করে ঘুরতে লাগল। সবকিছুই এটাকে কেন্দ্র করে ছিল যে, আমি কখন মুক্ত হব।

আমি ভাবতাম  ছুটিই আমার শান্ত ও পরিতোষের অভিজ্ঞতা লাভ করার একমাত্র সুযোগ। আল্লাহর নৈকট্য অর্জন করার আগ পর্যন্ত এই অনুভূতি থেকে কখনও দূরে সরতে পারিনি।

ছুটির দিনগুলির জন্য আমি অনেক পরিকল্পনা করতাম এবং সব পরিকল্পনা যখন পূর্ণ হত না তখন মানসিক অশান্তিতে ভুগতাম। তাই এভাবে আত্মিক শান্তি আমি কখনই অর্জন করেতে পারিনি।

আমি কি তবে আবার কখনও অনুভবের গভীরতা অর্জন করতে পারব?

হ্যাঁ – এই অভিজ্ঞতা আমার হল। তবে কোন হলিডে ডেস্টিনশনে নয়, আমারই শহরের একটি কনফারেন্স হলে।

আমাকে মনোবিজ্ঞানের ইনসাইড-আউট প্যারাডাইম সম্পর্কে শিখানো হচ্ছিল, যা চিন্তার মাধ্যমে অভিজ্ঞতা অর্জন করার একটি নতুন এবং শক্তিশালী উপায়। প্রতিবিম্বের সেই নিরিবিলি পরিবেশে আমি অনুভব করতে লাগলাম যে, আমি আল্লাহর সামনে উপস্থিত; এবং সেখানে আমি তাই পেলাম যার সন্ধান আমি সবসময় করেছিলাম। আল্লাহর সাথে এই সংযোগটি আমাকে সেই সমস্ত প্রশান্তি এবং তৃপ্তির অনুভূতি দিয়েছিল যা আমি সর্বদা সন্ধান করছিলাম। বাস্তবে, আমার যা প্রয়োজন তা হলো কেবল আল্লাহর সাথে নিজেকে জুড়ে দেওয়া। এজন্য আমাকে কোনো দেশত্যাগের প্রয়োজন নেই, সমুদ্রে সৈকতে বসে থাকারও প্রয়োজন নেই।

ক্রন্দনের মধ্য দিয়ে আমি বুঝতে পারলাম যে, আল্লাহ সর্বদা ঠিক এখানেই ছিলেন এবং তাঁর সাথে সম্পর্ক গড়ে তোলার জন্য আমাকে আর কোথাও যাওয়ার বা কিছু করার দরকার নেই। আমার কেবল নিজের মনকে শান্ত করার প্রয়োজন ছিল এবং ইনসাইড-আউট প্যারাডাইম আমাকে এটি করার একটি সহজ কিন্তু যুগান্তকারী উপায় দিয়েছে। মনোবিজ্ঞানের ইনসাইড-আউট প্যারাডাইম আমাদের অনুভূতিগুলি আসলে কোথা থেকে এসেছে সে সম্পর্কে সত্যতা শেখায়। আমরা শিখি যে আমরা কেবল আমাদের চিন্তাভাবনাকে অনুভব করছি, প্রতিটা মুহূর্তে। আমাদের অনুভূতিগুলি আমাদের নিজস্ব চিন্তাভাবনা ছাড়া অন্য কোথা থেকে আসে না। মনোবিজ্ঞানের ক্ষেত্রে একটি ধ্রুব সত্য হল: একটি চিন্তা = একটি অনুভূতি। এগুলি সবই আমাদের ভিতরে থেকে আসছে।

সুতরাং কীভাবে এই জ্ঞানটি আমাদের মনকে শান্ত করার এবং আরও বেশি সময় উপস্থিত থাকার কাজে সাহায্য করতে পারে যাতে আমরা আল্লাহর সাথে সংযোগ অনুভব করতে পারি?

যখন আমরা অন্তর্দৃষ্টি দিয়ে বুঝতে পারি যে আমরা কেবল আমাদের নিজস্ব চিন্তাভাবনাকেই অনুভব করছি তখন এটি অন্য সব অনুভূতিকে সমীকরণের বাইরে ফেলে দেয়।  তাই আমি যদি বিচলিত বোধ করি, সেই মুহুর্তে আমার অভ্যন্তরীণ চিন্তাকে পরিবর্তন করে ফেলি এবং বুঝতে পারি যে যদি এটি কেবল আমার চিন্তাভাবনার কারণে হয় তবে এটি সেই বিশেষ অনুভূতির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে, তাই এতে উদ্বিগ্ন হওয়ার মতো সত্যিকারের কিছুই নেই।

আমরা যখন আমাদের জীবনের সমস্ত ক্ষেত্রে এই সত্যটি উন্মোচিত দেখতে পাব, তখন স্বাভাবিকভাবেই আমাদের অসহায় চিন্তাভাবনার পরিবর্তন ঘটবে। আমাদের মন তখন শান্ত হবে, বিশৃঙ্খলতা কমবে এবং আল্লাহর কাছ থেকে অন্তর্দৃষ্টি লাভ করার পক্ষে তা আরও সহজ হবে। আমরা যদি আমাদের সৃষ্টিগতভাবে প্রাপ্ত শান্তির দিকে ফিরে আসি, তবে এর ফলে আল্লাহর সাথে আমাদের সংযোগের অনুভূতি আরও বাড়িয়ে তুলবে।