মামলা লড়তে ব্রিটেনে ফিরতে পারবেন শামীমা

বিশ্ব Tamalika Basu ১৬-জুলাই-২০২০
union jack
ID 146421692 © ChrisGhinda | Dreamstime.com

নিজের নাগরিকত্ব রক্ষা নিয়ে আদালতে সরকারের বিরুদ্ধে মামলা লড়তে যুক্তরাজ্যে ফিরতে পারবেন আইএস বধূ শামীমা বেগম। বৃহস্পতিবার লন্ডনের কোর্ট অব আপিল বা আপিল আদালত এক রায়ে জানিয়েছে, সিরিয়ায় শরণার্থী শিবির থেকে ব্রিটিশ সরকারের বিরুদ্ধে নিজের মামলা লড়তে পারবেন না শামীমা। যার ফলে, তিনি ন্যায্য শুনানি থেকে বঞ্চিত হবেন। এদিন বিবিসির খবরে বলা হয়, আপিল আদালতের রায় মানে হচ্ছে, ব্রিটিশ সরকারকে এখন শামীমাকে সিরিয়ার শরণার্থী শিবির থেকে লন্ডনের আদালতে হাজির করার উপায় খুঁজে বের করতে হবে। সরকার ইতিপূর্বে একাধিকবার তাকে সিরিয়া থেকে দেশে আনার প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছে।

২০১৫ সালে জঙ্গি গোষ্ঠী আইএসের সঙ্গে যোগ দিতে লন্ডন থেকে সিরিয়া যান বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত এই ব্রিটিশ তরুণী শামীমা। ২০১৯ সালে সিরিয়ায় একটি শরণার্থী শিবিরে তার সন্ধান পাওয়া যায়। সেসময় অন্তঃসত্ত্বা শামীমা দেশে ফিরতে চাইলে তার নাগরিকত্ব প্রত্যাহার করে নেয় ব্রিটিশ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

শামীমার আইনজীবী ড্যানিয়েল ফার্নার আদালতের রায় নিয়ে বলেন, শামীমা কখনোই নিজের পক্ষের বক্তব্য জানানোর ন্যায্য সুযোগ পাননি। তিনি ব্রিটিশ বিচারকে ভয় পান না, স্বাগত জানান। কিন্তু তাকে নিজের নাম পরিষ্কারের সুযোগ না দিয়ে তার নাগরিকত্ব প্রত্যাহার করে দেয়া ন্যায় বিচার নয়, এটা তার বিপরীত।
শামীমা যুক্তি, তার নাগরিকত্ব প্রত্যাহার অবৈধ কারণ, এতে তিনি রাষ্ট্রহীন হয়ে পড়েছেন। আন্তর্জাতিক আইন অনুসারে, কোনো ব্যক্তি যদি দ্বিতীয় কোনো দেশের নাগরিকত্ব থাকে, তবেই কোনো দেশ তার নাগরিকত্ব প্রত্যাহার করে নিতে পারে। গত মাসে আপিল আদালতে এক শুনানিতে শামীমার আইনজীবী যুক্তি প্রদর্শন করেন, সিরিয়া থেকে তিনি কার্যকরভাবে সরকারের সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ করতে পারছেন না, কিন্তু তাকে দেশেও ফিরতে দেওয়া হচ্ছে না।