মিনারেটস ইন মাউন্টেনস: ইউরোপের ভুলে যাওয়া মুসলিম ইতিহাস নিয়ে রচিত বেস্টসেলিং বই

বিখ্যাত ০১ মার্চ ২০২১ Contributor
জানা-অজানা
মিনারেটস ইন মাউন্টেনস
© Vasil Ivanov | Dreamstime.com

মিনারেটস ইন মাউন্টেনস । ইউরোপের স্বল্প-পরিচিত, দেশীয়, মূলধারার মুসলিম জনগোষ্ঠীর বিভিন্ন দিক সম্পর্কে এই বইয়ে আলোকপাত করা হয়েছে। এবং একুশ শতকে ইউরোপীয়ান মুসলমান বলতে মূলত কি বোঝায় তা বোঝাতে এই উপন্যাসের দৃশ্যপট সকলের হৃদয়ে দাগ কেটেছে।

সু-প্রশংসিত পর্যটক, সাংবাদিক ও লেখক তারিক হোসেন সৌদি আরবের লুকানো সম্পদ এবং ব্রিটেনের প্রাচীন ইসলামী ইতিহাস সন্ধানের জন্য ইতিমধ্যেই অনেক খ্যাতি অর্জন করেছেন। তবে তাঁর সর্বশেষ রচিত বই “মিনারেটস ইন মাউন্টেনস” একটি অনন্য বিষয়ের অবতারণা করেছে।

ইউরোপের প্রেক্ষাপটে মিনারেটস ইন মাউন্টেনস

তিনি আরব নিউজকে বলেছেন, নতুন প্রকাশিতব্য এই বইটিতে মূলত বাল্কান শহরজুড়ে তাঁর পারিবারিক ছুটির দিনগুলিতে ভ্রমণের মাঝে মানবিক কিছু কাহিনীর উল্লেখ এসেছে। এটি ছিল তাঁর স্ত্রী এবং সন্তানদের নিয়ে একটি মজাদার এবং উপভোগ্য ভ্রমণ। তবে এই ভ্রমণকাহিনীর মাঝে এমন কিছু বিষয়ের অবতারণা করা হয়েছে যা পাঠককে ইউরোপীয়ান মুসলিমদের সম্পর্কে দীর্ঘকালীন ভাবনা ও বাস্তবতার অনন্য এক বৈপরীত্যের মুখোমুখি হতে বাধ্য করবে, জানতে সাহায্য করবে মুসলিম এবং ইউরোপের মধ্যকার সম্পর্ক।

হোসেন আরও বলেন, “ইউরোপের নিজস্ব যে একটি মুসলিম পরিচিতি রয়েছে তা আমি এই বইয়ের মাধ্যমে মূলধারার নজরে আনতে চেয়েছি।”

তিনি তাঁর পরিবারসমেত সার্বিয়া, আলবেনিয়া, উত্তর ম্যাসেডোনিয়া, মন্টিনিগ্রো, বসনিয়া এবং কসভো সফর করেছেন। সেখানকার স্থানীয়দের সাথে সাক্ষাত করেছেন এবং পূর্ববর্তী মুসলিম জনগোষ্ঠীর মূল উৎস সম্পর্কে অনুসন্ধান করেছেন।

হারানো ইসলামী সভ্যতা 

তবে এটি তার পূর্ববর্তী ইউরোপ ভ্রমণের মত নয়। যেমন তিনি স্পেনের দক্ষিণে ভ্রমণ করেছিলেন (যা পূর্বে আন্দালুস নামে পরিচিত ছিল) দীর্ঘদিন পূর্বে হারিয়ে যাওয়া ইসলামী সভ্যতা সম্পর্কে লেখার জন্য। এই ভ্রমণ সম্পর্কে তিনি বলেন, “এই ভ্রমণটি ছিল একেবারেই ভিন্নরকম – এই ভ্রমণে আমি এমন একটি মুসলিম সংস্কৃতির অন্বেষণ করেছিলাম যা আজও অবধি জীবিত ও সমৃদ্ধ রয়েছে।”

“সর্বসাধারণের মাঝে গ্রহণযোগ্য একটি ধারণা হল ইউরোপের মূল পৌত্তলিকতার সাথে যুক্ত। কিন্তু আদতে এটি একটি ভ্রান্তি। ইসলামের প্রথম শতাব্দী থেকেই ইউরোপে ইসলামের অস্তিত্ব পূর্ণমাত্রায় বিরাজমান ছিল।”

তিনি বলেন যে, বাল্কান অঞ্চলের আদি নিবাসী মুসলমানদের পূর্ব ইউরোপীয় বলে চিহ্নিত করে তাদেরকে ইউরোপীয় অধিবাসী এবং মূলধারার পরিচিতির বাইরে রাখা হয়েছে।

শরণার্থী নয় আদিবাসী মুসলমান

হোসেনের কাছে “পূর্ব ইউরোপ” এবং “অন্যান্য ইউরোপ” শব্দ দুটি প্রায় সমার্থক। তিনি বলেন, “এটি এই ভ্রান্ত ধারণারই অবদান যে, এই মহাদেশটিতে স্থানীয় এবং আদিবাসী কোনো মুসলিম জনসংখ্যা নেই।” শেষ পর্যন্ত তাঁর বই এই রূপকথাটিকে মিথ্যা প্রমাণিত করেছে।

তিনি বলেন, “একজন ব্রিটিশ মুসলিম হিসাবে আমাকে রাজনৈতিক সুযোগসন্ধানীদের কাছ থেকে অস্পষ্টভাবে এবং মাঝে মাঝে স্পষ্টভাবে শুনতে হয়েছে যে, মুসলমানরা ইউরোপীয় প্রাকৃতিক দৃশ্যের অংশ নন এবং মুসলমান শরণার্থীদের অনুপ্রবেশ এখনও ইউরোপে চলমান। এটি একটি ভিত্তিহীন ও মিথ্যা কথা। সপ্তম শতাব্দী থেকেই ইউরোপে মুসলমান রয়েছে।”

“মিনারেটস ইন মাউন্টেনস” আগামী ২১-ই জুন জনসাধারণের জন্য উন্মোচিত করা হবে। তবে প্রাক-বিক্রয়কালের বুকিং-ই এটিকে ইতিমধ্যে অ্যামাজনে ‘বেস্টসেলিং ট্রাভেল বই’-এ পরিণত করেছে।

এখন বইটি প্রকাশের পরই মূলত বোঝা যাবে যে, সর্বসাধারণ বইটিকে কিভাবে কদর করে।