SalamWebToday নিউজলেটার
Sign up to get weekly SalamWebToday articles!
আমরা দুঃখিত কোনো কারণে ত্রুটি দেখা গিয়েছে:
সম্মতি জানানোর অর্থ, আপনি Salamweb-এর শর্তাবলী এবং গোপনীয়তার নীতি মেনে নিচ্ছেন
নিউজলেটার শিল্প

রোগা হতে আজ থেকে শুরু করুন আমলকির চা

স্বাস্থ্যকর খাদ্য ০২ ফেব্রু. ২০২১
মতামত
আমলকির চা
© Mirzamlk | Dreamstime.com

আজকে আমরা আলোচনা করব আমলকির চা নিয়ে। আমলা বা আমলকির পরিচিতি আমাদের কাছে প্রধানত ওষধি হিসেবে। আয়ুর্বেদিক চিকিৎসায় আমলকি বহু ব্যবহৃত উপাদান। প্রাচীন ভারতীয় চিকিৎসায় আমলকিকে সাধারণত কাঁচা অবস্থায় বা শুকিয়ে ব্যবহার করা হত। এছাড়া খাবার পর হজমে সহায়তার জন্য কাঁচা আমলকিকে চিনির রসে জারিয়ে মোরব্বা বানিয়ে খাওয়া হত। ভারতীয় উপমহাদেশ ছাড়াও মধ্য এশিয়া এবং দক্ষিণ এশিয়ার কিছু দেশে আমলকি উৎপন্ন হয়। আমলকির স্বাদ খানিক কষা, টক, ফলে একে শুধু খেতে খুব একটা ভাল লাগে না। ফলে কাঁচা আমলকির চেয়ে তাকে শুকিয়ে নুন দিয়ে জারিয়ে সাধারণত খাওয়া হয়ে থাকে।

আমলকির চা কী?

আমলকির চায়ের কথা শুনে আপনারা হয়তো অনেকেই অবাক হচ্ছেন! তবে নামে চা হলেও, এতে কিন্তু চা পাতার নাম-গন্ধও নেই! আমলকি শুকিয়ে নিয়ে তাকে গুঁড়ো করে তা দিয়ে এই চা তৈরি হয়, যা আমাদের শরীরকে সুস্থ সতেজ রাখতে সাহায্য করে। রোগা হওয়ার জন্যেও আমলকির চায়ের জুড়ি নেই! আমলকির মধ্যে থাকে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন সি, যা শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। প্রতি ১০০ গ্রাম আমলকিতে প্রায় ৪৭৮ মিলিগ্রাম ভিটামিন সি এবং ৫ গ্রাম ফাইবার থাকে। এছাড়া আয়রন, পটাশিয়াম, কপার, ম্যাঙ্গানিজের মতো প্রয়োজনীয় খনিজ উপাদানে ভরপুর এই ফল। তাহলে কেন খাবেন এই চা?

রোগা হতে আমলকির চা-য়ের কামাল

দীর্ঘদিন ডায়েট করেও কোনও ফল পাচ্ছেন না? তাহলে কষ্ট করে ডায়েট না করে আমলকির চা খান। এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট যা হজমে সহায়তা করে। এছাড়া আমলকিতে থাকা ফাইবার কোষ্ঠকাঠিন্য কমায় এবং পেট পরিষ্কার রাখে। ফলে শরীর ঝরঝরে থাকে। আলসার, অ্যাসিডিটি ইত্যাদি দূর করতেও আমলকির কাজে দেয়। শরীরে বাড়তি ক্যালোরি জমতে শুরু করলেই মেদ বাড়তে থাকে। এই  চা মেটাবলিজম বৃদ্ধি করে আমাদের শরীরের বাড়তি ও অপ্রয়োজনীয় ক্যালোরি ঝরিয়ে দেয়। এছাড়া শরীর থেকে ক্ষতিকারক টক্সিন বের করে শরীরকে ডিটক্সিফাই করে।

কোলেস্টেরল এবং রক্তচাপ কমায়

খারাপ কোলেস্টেরল শরীরে হৃদরোগ সহ অন্যান্য নানা রোগের সম্ভাবনা বাড়ায়। কোলেস্টেরল হলে ডাক্তাররা ওষুধ খেতে বলেন। তবে সেই ওষুধের পাশাপাশি আপনি নিয়ম করে এই চা খান, তাহলে কোলেস্টেরলের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে পারবেন। এই চা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ রাখতেও সাহায্য করে।

এনার্জি বাড়াতে

সুস্থ মেদহীন শরীর এনার্জি বাড়ায়। আমলকি দেওয়া চা শরীরে প্রোটিন সংশ্লেষ পদ্ধতিকে তরান্বিত করে এনার্জির যোগান দেয়। সারাদিন ঝরঝরে থেকে কাজ করতে যদি চান, তাহলে এনার্জি বাড়ানোর জন্য এই চা খাদ্যতালিকায় রাখা অত্যন্ত জরুরি।

রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখে

ডায়াবেটিসের জন্য যদি আপনাকে নিয়ম করে ওষুধ খেতে হয়, তাহলে এবার থেকে আমলকির চা খাওয়া অভ্যেস করুন। আমলকিতে থাকা ক্রোমিয়াম রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখে, এবং আচমকা শর্করার মাত্রা কমে যাওয়াকে প্রতিহত করে। রক্তের শর্করার মাত্রা হঠাৎ করে কমে গেলে কিন্তু অনেক সমস্যা দেখা যায়, ফলে সেসবকে দূরে সরিয়ে সুস্থ থাকতে এই চা খান।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে

ঘনঘন সর্দিকাশির সমস্যা থাকলে বা শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম থাকলে আমলকির চা খেতে পারেন। কারণ এর অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল গুণ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে এবং ইনফেকশনের হাত থেকে আমাদের বাঁচায়। এছাড়া এতে থাকা ভিটামিন সি-এর অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট উপাদান শরীরে শ্বেত রক্তকণিকার পরিমাণ বাড়িয়ে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে তোলে।

সহজে বানান আমলকির চা

উপকরণ

২ কাপ পানি, ১ চামচ আমলকির গুঁড়ো, হাফ চামচ আদা থেঁতো করা, সামান্য গোলমরিচ গুঁড়ো, ১ চামচ মধু

কীভাবে বানাবেন

একটি পাত্রে পানি নিয়ে তাতে আমলকির গুঁড়ো, গোলমরিচ গুঁড়ো এবং থেঁতো করে রাখা আদা দিয়ে দিন। হালকা আঁচে চুলায় বসিয়ে রাখুন। ফুটতে শুরু করে চুলা থেকে নামিয়ে ছেঁকে নিয়ে ওতে মধু মিশিয়ে নিলেই তৈরি আমলকির চা।

অনেকে গ্রিন টি-র মধ্যে আমলকির গুঁড়ো মিশিয়ে আমলকির চা তৈরি করেও খান। তবে যেভাবেই খান না কেন, সুস্থ থাকতে রোজ সকালে নিয়ম করে এই চা খেতে কিন্তু ভুলবেন না।