রোহিঙ্গা গণহত্যা স্বীকার করলেন না সুকি

Uncategorized Tamalika Basu ১২-ডিসে.-২০১৯

হেগ: রোহিঙ্গা নির্যাতণের অভিযোগ পাশ কাটিয়ে গেলেন মিয়ানমারের অবিসংবাদি নেত্রী ও মানবাধিকারের মুখ আন সাং সুকি। বরং রোহিঙ্গা গণহত্যার অভিযোগ তুলে আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে তার সরকারের বিরুদ্ধে গাম্বিয়ার মামলা করার অধিকার নিয়ে প্রশ্ন তুললেন মিয়ানমারের জননেত্রী। নেদারলন্ডসের আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে (আইসিজে)-র কাছে এই মামলা খারিজের আবেদন জানিয়েছেন সুকি।

দুই বছর আগে রোহিঙ্গাদের গ্রামে গ্রামে সেনাবাহিনীর অভিযানে যে বর্বরতা চালানো হয়েছে, তার মধ্য দিয়ে ১৯৮৪ সালের আন্তর্জাতিক গণহত্যা কনভেনশন ভঙ্গ করার অভিযোগে মিয়ানমারকে জাতিসংঘের এই সর্বোচ্চ আদালতে এনেছে পশ্চিম আফ্রিকার ছোট্ট দেশ গাম্বিয়া। তৃতীয় ও শেষ দিনের শুনানিতে বৃহস্পতিবার দুই পক্ষের যুক্তিতর্ক শোনে আইসিজের ১৭ সদস্যের বিচারকের প্যানেল। এদিন সুকি বলেন, তাঁর দেশের সামরিক বিচারব্যবস্থার উন্নয়ন ঘটানোর সুযোগ না দিয়ে একে দেশের বাইরে বের করা (আন্তর্জাতিকীকরণ) উচিত নয়।

রাখাইনে মুসলিম রোহিঙ্গা সম্প্রদায়ের ওপরে গণহত্যা ও নির্যাতন হয়েছে এ অভিযোগে ‘গণহত্যা’ শব্দটি উচ্চারণ করেননি সুকি। তবে ওই এলাকায় বিভিন্ন সম্প্রদায়ের মধে সমস্যা রয়েছে বলে মন্তব্য করেন তিনি। মিয়ানমারের মংডো শহরে একটি ফুটবলম্যাচে হাজির দর্শকদের ছবি দেখিয়ে অং সান সু চি বললেন, তারা সম্প্রীতি প্রতিষ্ঠার চেষ্টায় কাজ করছেন এবং তারা তা চালিয়ে যেতে চান। তিনি বলেন, আদালতের কাছে আমরা সেই সুযোগ চাই। ২০১৬-১৭‘র মত আন্ত-জাতিগত সংঘাত আবার শুরু হোক এমন কিছু আমরা চাই না।’