রোহিঙ্গা হত্যা করা যাবে না, মিয়ানমারকে কড়া নির্দেশ আইসিজের

জীবন Tamalika Basu ২৩-জানু.-২০২০
Protest against rohinga genocide
ID 120310876 © Bundit Minramun | Dreamstime.com

রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে গণহত্যার অভিযোগ সংক্রান্ত মামলায় চারটি অন্তর্বর্তীকালীন আদেশ দিয়েছেন জাতিসংঘের সর্বোচ্চ আদালত ইন্টারন্যাশনাল কোর্ট অব জাস্টিস (আইসিজে)। বৃহস্পতিবার (২৩ জানুয়ারি) নেদারল্যান্ডসের হেগে অবস্থিত আইসিজের বিচারক আবদুল কায়ি আহমেদ ইউসুফ আদেশ দেন যে রোহিঙ্গাদের ওপর শারীরিক-মানসিক নিপীড়ন বন্ধ করতে হবে। নির্বিচারে তাদের হত্যা বন্ধ করে তাদের সুরক্ষা নিশ্চিত করতে হবে। এর পাশাপাশি মিয়ানমারকে গণহত্যা থেকে বিরত থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এ রায়ে নির্যাতিত রোহিঙ্গারা প্রথম জয়ের স্বাদ পেয়েছেন বলে মন্তব্য করেছেন রোহিঙ্গা সংগঠনগুলোর প্রতিনিধিরা। তারা বলছেন, যুগ যুগ ধরে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী নির্যাতনের শিকার হলেও কোনও বিচারই পায়নি। এই রায় তাদের স্বস্তি এনে দিয়েছে। গাম্বিয়ার করা মামলায় ছয়টি দাবির মধ্যে চারটি পক্ষে আসায় প্রথম জয় হয়েছে তাদের। এজন্য মনে হচ্ছে প্রথম বিচারের স্বাদ পেয়েছেন তারা। এ রায়ে তারা খুশি। তবে প্রত্যাবাসন নিয়ে আলোচনা করারও দাবি তাদের।

এদিন মিয়ানমারকে গণহত্যায় অভিযুক্ত করেছে আইসিজে। গণহত্যা বন্ধ করে রোহিঙ্গাদের সুরক্ষায় মিয়ানমারের বিরুদ্ধে অন্তর্বর্তীকালীন জরুরি পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য গাম্বিয়ার আবেদনকে যুক্তিযুক্ত বলে মনে করেন এই আন্তর্জাতিক আদালত।

বৃহস্পতিবার বিকালে টেকনাফের লেদা, শালবন নয়াপাড়া ও লেদা রোহিঙ্গা শিবির ঘুরে দেখা গেছে, রায়ের খবর শুনতে ছোট ছোট দোকানে রোহিঙ্গারা ভিড় করছেন।টেকনাফের নয়াপাড়া নিবন্ধিত রোহিঙ্গা ক্যাম্পের আবদুল হামিদ বলেন,‘আইসিজের দেওয়া রায়ে আমরা অনেক খুশি, এটি মাত্র শুরু। এটি বিচারের প্রথম স্বাদ। তাছাড়া এই রায় দ্রুত বাস্তবায়ন দেখতে চাই। কিন্তু, প্রত্যাবাসনের বিষয়টি যদি সামনে আনা যেত, তাহলে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন দ্রুত শুরু হতো।’

বার্মিজ রোহিঙ্গা অর্গানাইজেশন (ইউকে) প্রধান থুন কিং বলেন, ‘এ রায়ের মাধ্যমে মিয়ানমার আরও বেশি চাপে পড়বে। কেননা, এই মামলায় মিয়ানমার স্টেট কাউন্সিলর প্রধান অং সান সু চি নিজে উপস্থিত ছিলেন। যদি বা বিভিন্ন সময়ে স্বাধীন তদন্ত প্যানেলের নামে বারবার রোহিঙ্গাদের ওপর পরিচালিত গণহত্যার ঘটনাগুলো এড়িয়ে গিয়ে সরকারি বাহিনীকে রক্ষার চেষ্টা করা হয়েছে।’

রোহিঙ্গাদের সংগঠন আরাকান রোহিঙ্গা সোসাইটি ফর পিস অ্যান্ড হিউম্যান রাইটসের (এআরএসপিএইচ) সাধারণ সম্পাদক মাস্টার সৈয়দ উল্লাহ বলেন,‘ছয়টি দাবির মধ্যে চারটি আমাদের পক্ষে এসেছে। তবে সবচেয়ে বড় কথা, রোহিঙ্গা গণহত্যার বিরুদ্ধে অং সান সু চির যুক্তি খারিজ করা হয়েছে। এটি প্রমাণ করে সেখানে গণহত্যা হয়েছে। এজন্য রায়ের দিন সু চি সেখানে উপস্থিত ছিলেন না। এই রায় থেকে সু চির লজ্জা পাওয়া উচিত। তবে প্রত্যাবাসনের বিষয় নিয়ে যদি আলোচনা করতো, তাহলে আরও ভালো হতো।’

কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মোহাম্মদ ইকবাল হোসাইন বলেন, ‘আইসিজের ঘোষিত রায়ের পর পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে ক্যাম্পে নজরদারি রাখা হয়েছে।’

প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালের আগস্টে রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর পূর্ব-পরিকল্পিত ও কাঠামোগত সহিংসতা জোরদার করে মিয়ানমার সেনাবাহিনী। দেশটির সেনাবাহিনী রাখাইনে হত্যাকাণ্ড, সংঘবদ্ধ ধর্ষণ, ঘরবাড়িতে অগ্নিসংযোগ শুরু করলে জীবন বাঁচাতে নতুন করে সাত লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে আসে। এই নৃশংসতাকে ‘গণহত্যা’ আখ্যা দিয়ে ২০১৯ সালের ১১ নভেম্বর আইসিজেতে মামলা করে গাম্বিয়া।