শেফচাউয়েন : মরক্কোর ঐতিহ্যবাহী ও বিখ্যাত নীল মুক্তোর শহর

পর্যটন Contributor
ফিচার
শেফচাউয়েন
© Elenatur | Dreamstime.com

শেফচাউয়েন , (চৌওন নামেও পরিচিত), মরক্কোর নীল মুক্তোর শহর, বিখ্যাত এর পুরোনো, ঐতিহ্যবাহী নীল রঙের স্থাপত্যের জন্য, যা এই শহরকে নীল বর্ণে রাঙিয়ে তুলেছে। রিফ পর্বতের উঁচু অংশে অবস্থিত এই নীল মুক্তোর মতো রূপকথার রাজ্যে যেতে মরক্কোর টাঙিয়ের শহর থেকে লাগবে মাত্র ঘণ্টা দুয়েক। পর্বতের গায়ে অবস্থানের কারণে এবং তার পাশাপাশি স্থানীয় ঐতিহাসিক এবং ঐতিহ্যগত গুরুত্বের জন্য এটি বিশ্বের ভ্রমণপিপাসু পর্যটকদের কাছে এই শহরে অত্যন্ত লোভনীয় একটি গন্তব্য।

শেফচাউয়েন শহরের ইতিহাস

ইতিহাস অনুসারে, মরক্কোর এই নীল মুক্তো প্রকৃতপক্ষে দুধের মতো সাদা ছিল, যখন ১৪৭১ সালে শেফচাউয়েন শহর প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল, স্থানীয় নেতা আবু আল-হাসান আলি ইবনে মউসা ইবনে রশিদ আল-আলামির হাত ধরে। সেই সময় পর্তুগীজরা সমগ্র মরক্কো দখল করার চেষ্টা চালাচ্ছিল। এই শহর তৈরি করা হয়েছিল পর্তুগীজদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলার জন্য। ক্রমশ মরক্কোর সিওটা, টাঙিয়ের শহর পর্তুগীজদের পদানত হলেও, রিফ এলাকার শেফচাউয়েন ছিল শেষ দুর্গ যা তখনও পর্তুগীজদের দখলে আসেনি। পর্তুগালের রাজা পঞ্চম আলফোনসো, যিনি তাঁর পিতামহের স্বপ্ন পূরণ করার জন্য মরক্কো দখল অভিযান জারি রেখেছিলেন, তিনিই হয়ে উঠেছিলেন এই শহরের সবচেয়ে বড় আতঙ্কের কারণ।

১৪৯০ সাল নাগাদ স্পেনের গ্রানাদা অঞ্চল থেকে ধর্মান্তরিত হওয়া এড়াতে বহু মুসলিম ও ইহুদি এসে এই এলাকায় আশ্রয় গ্রহণ করেছিলেন। ফলে শেফচাউয়েনের বাসিন্দারা তাঁদের সংস্পর্শে আসতে শুরু করেন।

শেফচাউয়েন এবং তাঁর পার্শ্ববর্তী এলাকাকে রিফ নামেই অভিহিত করা হয়। এই এলাকা বিংশ শতকের প্রথম ভাগ পর্যন্ত স্পেনীয় এবং ফরাসী সরকারের অধীনে ছিল। ১৯২১ সালে সাময়িক ভাবে যে রিফ প্রজাতন্ত্র গঠিত হয়েছিল, এই শহর ছিল তার অংশ। পাঁচ বছর পরে ফরাসী এবং স্পেনীয় সরকার এই প্রজাতন্ত্রের অবসান ঘটান। এই ইউরোপীয় শক্তিদের হাত থেকে মরক্কো এবং শেফচাউয়েন ১৯৫০ এর দশকে স্বাধীনতা লাভ করে। ১৯৫৭ সালে পঞ্চম মুহাম্মদ স্বাধীন মরক্কোর প্রথম রাজার আসন লাভ করেন।

শেফচাউয়েন ও সংস্কৃতি

শেফচাউয়েনের দুধ-সাদা বাড়িগুলি পরে নীল রঙ করা হয়। মনে করা হয়, পঞ্চদশ শতকে প্রথম এই বাড়িগুলি ইহুদি এবং মুসলিম আশ্রয়প্রার্থীরা বানিয়েছিলেন। আজও এই পরম্পরা মেনে চলেন শহরবাসী। কেন এখানে প্রতিটি বাড়ির রঙ নীল, সেই নিয়ে নানা মত রয়েছে। কেউ বলেন, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় যখন ইহুদিরা হিটলারের ভয়ে পালাচ্ছিলেন, তখন গোটা শহরকে নীল রঙ করে দেওয়া হয়েছিল, আবার কেউ বলেন, চারশো বছর আগে ইহুদিরা যখন স্পেনের আক্রমণ থেকে বাঁচতে পালাচ্ছিলেন, তখন এই রঙ করা হয়। আধুনিক যুগের বাসিন্দাদের কথায়, ইতিহাস যা-ই হোক না কেন, এখন এই নীল রঙ তাঁদের আকাশ এবং আল্লাহের উপস্থিতির কথা মনে করিয়ে দেয়। আরও একটি দাবি হল, নীল রঙ মশাদের দূরে রাখে, তাই ম্যালেরিয়া ও অন্যান্য মশাবাহিত রোগের হাত থেকে বাঁচতেই এই পথ অবলম্বন করা হয়েছে।

শহরের ঐতিহাসিক সংস্কৃতি

শহরটি খুব একটা বড় নয়, একদিনেই গোটাটা ঘুরে ফেলা সম্ভব। তবে গোটা শহরটি পরিপাটি করে গোছানো। বাসিন্দারা তাঁদের শহরের ঐতিহ্যবাহী নীল রঙ সম্পর্কে এতটাই সচেতন যে, তাঁরা মূল ফটকের বাইরের দিকেও নীল রঙ করান। যাতে বাড়ির দেওয়াল ও আশপাশের সাথে সামঞ্জস্য বজায় থাকে। মরক্কোর অন্যান্য শহরের মতো এখানেও আরবী ভাষার ব্যবহার বেশি। শেফচাউয়েনের মজসিদ ও সংগ্রহশালাগুলি দেখার মতো। এই শহরের বড় মসজিদে অবশ্যই যাবেন। এখানকার সংগ্রহশালাগুলি মুসলিম ঐতিহ্যের ধারক ও বাহক।

শেফচাউয়েন ও প্রাকৃতিক সৌন্দর্য

কেউ যদি শুধুই শহরের ইতিহাসের মধ্যে সীমাবদ্ধ না থেকে, প্রকৃতির সৌন্দর্যের মাঝে হারিয়ে যেতে চান, তার জন্যও শেফচাউয়েন হল আদর্শ জায়গা। এখানে প্রকৃতির মাঝে একটু অ্যাডভেঞ্চারে মেতে ওঠার মতো অজস্র হাতছানি রয়েছে। রিফ পর্বতে ট্রেক করে হাইকাররা পৌঁছে যেতে পারেন এর সর্বোচ্চ শৃঙ্গ জেব আল-কালা। এই উঁচু শৃঙ্গ থেকে নীল শহরের সৌন্দর্য আরও আকর্ষণীয় লাগে। মনে হয় যেন, মানুষের হাতে তৈরি বিশাল সমুদ্র যেন দু হাত বাড়িয়ে আপনাকে স্বাগত জানাচ্ছে। এই ট্রেকে প্রায় ৯ ঘণ্টা সময় লাগে, এবং দুর্বল হৃদয়ের মানুষদের এই যাত্রায় না যাওয়াই ভালো। এছাড়াও দেখতে পারেন, তালাসেন্তানে ন্যাশনাল পার্কের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য, যা তৈরি করা হয়েছিল মরক্কোর বিপন্ন ফার গাছ রক্ষা করার জন্য। অসাধারণ ঝর্ণা ও নদীর সাথে, এই পার্কের সৌন্দর্য

অতুলনীয়। এই পার্কের সীমান্তের বাইরে সবুজের আড়ালে লুকিয়ে রয়েছে আকচুর ঝর্ণা। আর রয়েছে একটি ব্রিজ, যাকে বলা হয় আল্লাহের ব্রিজ। পাথর কেটে যে অসাধারণ ভাবে এই প্রাকৃতিক ব্রিজটি তৈরি হয়েছে, তা আল্লাহের করুণা ছাড়া সম্ভব নয়।

মরক্কো গিয়ে যদি কেউ শেফচাউয়েন না দেখেন, তাহলে সেই আক্ষেপ সারা জীবনে মিটবে না।

Enjoy Ali Huda! Exclusive for your kids.
Enjoy Ali Huda! Exclusive for your kids.
Enjoy Ali Huda! Exclusive for your kids.