সহজে নিরাপদ থাকুন ইন্টারনেট ব্যাংকিংয়ে

Transaksi tanpa tunai © Siraj Ahmad | Dreamstime.com

যুগের সাথে পাল্লা দিয়ে বদলাচ্ছে যোগাযোগ ব্যবস্থা। মোবাইল ছাড়া এখন চলাই যায় না। প্রায় সব মানুষই মোবাইল ব্যবহারের অন্তর্ভুক্ত। টাকা আদান প্রদান যাতে সহজেই করা যায় তার জন্য চালু হয়েছে নেট ব্যাংকিং। সবার মধ্যেই এটা বেশ জনপ্রিয় হয়েছে। কিন্তু সব কিছুরই ভালো মন্দ আছে, এটাও তার ব্যতিক্রম নয়। অনেকে নেট ব্যাংকিং সচেতন ভাবে না করায় মাঝে মাঝেই ঝামেলায় পড়েন। আবার কেউ কেউ অন্যের দ্বারা ঠকে যান ফলে ঘটে বিপত্তি। তাই অবশ্যই সচেতন থাকুন আর আপনার নেট ব্যাংকিং যাতে নিরাপত্তা পায় ও প্রতারনার শিকার না হয় নেট ব্যাংকিংকে নিরাপদ থাকার উপায় গুলো জেনে নিন। ২০১৯ সালের মাঝামাঝি পর্যন্ত দেশে মোবাইল আর্থিক সেবা ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৬ কোটি অতিক্রম করেছে।

অনেকেই কাস্টমার কেয়ারের নামে প্রতারনা করে আপনাকে ফোন করে বিব্রত করবে। আপনাকে উল্টোপাল্টা কথা বলে আপনার পিন নম্বর জানার চেষ্টা করবে। জেনে রাখুন, কাস্টমার কেয়ার কখনো আপনার ব্যাংকিং এর পিন নম্বর জানতে চাইবেনা। তাই সাবধান হন এবং যখনই এরকম কল করে আপনার থেকে ব্যাংকিং-এর পিন নম্বর জানতে চাইবে তখনই কাস্টমার হেল্প লাইনে যোগাযোগ করে অভিযোগ করুন।

ব্যাংকিং এর পিন নম্বর খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এই পিন নম্বর আপনি ছাড়া যেন আর কেউ জানতে না পারে তার ব্যবস্থা করুন। সেক্ষেত্রে আপনার পিন নম্বর কেউ জেনে গেলে সে যখন তখন আপনার অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা তুলে নিতে পারবে, ফলে আপনি প্রচণ্ড সমস্যার মুখোমুখি হবেন এবং আর্থিক সংকটও হতে পারে।

যখনই নেট ব্যাংকিং করবেন তখনই নিবন্ধ সিমে ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খোলার চেষ্টা করুন। যেকোনো নম্বরে হঠাৎ হঠাৎ খুলবেন না কারন এতে আপনিই পরে ঝামেলায় পড়তে পারেন। কখনো কোনো পরিস্থিতিতে যদি আপনার সিম কার্ড হারিয়ে যায় বা হারিয়ে ফেলেন তাহলে আপনি ওই নম্বরে নতুন সিম ও নিতে পারবেন না। সবচেয়ে বড়ো সমস্যা আপনি টাকাও তুলতে পারবেন না।

লটারির ফাঁদে একদম পা দেবেন না। যখন তখন হঠাৎ কেউ ফোন করে বলল যে আপনি দশ লাখ টাকা বা পাঁচ লাখ টাকার পুরষ্কার জিতেছেন, আপনার ওই নম্বরে এত টাকা পাঠাতে হবে; তখনই আপনি আনন্দে তাকে সব বলে বসলেন। ব্যাস তাহলেই হল, মিথ্যা বলে আপনার অ্যাকাউন্ট থেকে সব টাকা তুলে নেবে। তাই হঠাৎ করে ফোনে কিছু শুনে সিদ্ধান্ত নেবেন না আর সবাই কে সব কিছু বলে বসবেন না।

অনেকেরেই একাধিক নেট ব্যাংকিং থাকে। প্রত্যেক ব্যাংকিং এ আলাদা আলাদা পিন সেট করবেন সবসময়। কারন কোনো কারণবশত যদি কেউ আপনার একটা পিন নম্বর জেনেও যায় তো কোনোমতেই বাকি গুলো জানতে পারবে না। ফলে একটার দ্বারা অন্য অ্যাকাউন্টের কোনো ক্ষতি হবে না, এবং তা নিরাপদে থাকবে। তাই প্রত্যেকটি অ্যাকাউন্টে আলাদা পিনের ব্যাবহার করুন।

আপনার  মোবাইল ব্যাংকিং অ্যাকাউন্টে কত টাকা আছে তা সবসময় হিসাব করে রাখুন। যেকোনো সমস্যায় আপনার এটা লাগতে পারে। তাছাড়া নম্বর অনুযায়ী ব্যাংকিং-এ কিছু সমস্যা হয় তাহলে কাস্টমার কেয়ারে বিশদ তথ্য দিতে হতে পারে। তাই অবশ্যই তথ্য গুলো জেনে রাখবেন।

যেকোনো মোবাইল ব্যাংকিং নম্বরে টাকা পাঠানোর আগে নিজে ফোন করুন। সেই নম্বর থেকে কল করে নিশ্চিত হন যে আপনি টাকা পাঠালে তা সঠিক ব্যক্তির কাছে যায় কিনা। নম্বর ক্লোনিংয়ের মাধ্যমে ফোন নম্বর নকল করে প্রতারকেরা ফোন করে টাকা চাওয়ার ঘটনা জানা গেছে। সুতরাং কোনো পরিচিতজনের নম্বর থেকে ফোন এলে আপনি টাকা দেয়ার আগে অবশ্যই আপনার মোবাইল থেকে সেই ব্যক্তির নম্বর ডায়াল করে জেনে নিন যে তিনি আসলে টাকা চাইছেন কিনা। গলার স্বর, প্রয়োজন সবই খেয়াল করে শুনুন।

ক্যাশ আউট ছাড়া নিজেদের মধ্যে টাকা লেনদেনের জন্য ব্যক্তিগত ফোন নম্বরে মোবাইল ব্যাংকিং একাউন্ট খুলুন ও ব্যবহার করুন। এতে হিসেব ও নিরাপত্তা সহজেই রাখা যায়।