সাফল্য সম্পর্কে কোন মানসিকতা শিশুমনে গেঁথে দেবেন?

Muslim teacher
ID 15736836 © Zurijeta | Dreamstime.com

কোনও শিশুর সঠিক বেড়ে ওঠার ক্ষেত্রে একদিকে যেমন তাঁর প্রাথমিক শিক্ষা, তার শিক্ষা প্রণালীর সঙ্গে যুক্ত বিভিন্ন বিষয়গুলো জড়িয়ে থাকে, ঠিক তেমন ভাবেই পরিবার এবং অভিভাবকদেরও এক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। সুতরাং আমরা বলতে পারি শিশুর শিক্ষার ক্ষেত্রে তাঁর পরিবার এবং স্কুলগুলি প্রদত্ত শিক্ষার এক যৌথ সংমিশ্রণ লক্ষ করা যায়। হোমওয়ার্ক – যেমন অনেক শিক্ষার্থী এবং অভিভাবককে তৃপ্ত করে, শিশুশিক্ষার বিকাশের ধারাকে উন্নত এবং পরিশীলিত করে। তেমনই একজন শিক্ষকের সরাসরি তত্ত্বাবধান ছাড়াই পিতা-মাতার সাহচর্যেও বাচ্চারা অনেক কিছু শিখতে পারে, ছোট ছোট দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে তারা ধীরে ধীরে রপ্ত হয়ে ওঠে। স্বতন্ত্র শিক্ষা, ইতিবাচক ধারণা এবং পিতামাতার মনোযোগের কারণেই তাদের গতিশীল ব্যক্তিগত বিকাশের পথটি তৈরি হয়ে যায়।

আপনার শিশুটিকে আপনি কীভাবে কাজে অনুপ্রাণিত করবেন, যাতে ব্যর্থতার সময়েও তারা অবসাদ ভুলে থাকতে পারে?

স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোবিজ্ঞানী ক্যারল ডোয়েক ‘মানসিকতা’-এর একটি সহজ ধারণা আমাদের সামনে উপস্থিত করেছেন। কার্যত আমাদের মানসিকতা আমাদের কোনও সাফল্যের ধারণাটিকে কীভাবে নিয়ন্ত্রণ করে বা বাধা দেয়, সেই সম্পর্কে তিনি ব্যাপক গবেষণা করেছেন। কার্যত মানসিকতা হল নিজের বিশ্বাস। নিউ সাইকোলজি অফ সাকসেস (২০০০) গ্রন্থটিতে এর ধারাবাহিক বিবরণ উল্লেখ করা রয়েছে। ‘স্থির মানসিকতা’ সম্পন্ন লোকেরা এক প্রান্তে সাফল্য বা অভাবকে সহজাত বৈশিষ্ট্য হিসাবে দেখেন এবং সময়ের সঙ্গে সঙ্গে তারা পরিবর্তিত হতে পারে না। কার্যত বয়সের সঙ্গে সঙ্গেই একজনের দক্ষতা পরিবর্তিত হয় এবং তাই সাফল্য ঘটে বা কিছু ক্ষেত্রে সাফল্য আবার আসে না। অন্য প্রান্তে, ‘বৃদ্ধির মানসিকতা’  যুক্ত লোকেরা নতুন কিছু শেখার মধ্যে দিয়ে এবং কঠোর পরিশ্রমের উপর ভিত্তি করে সাফল্যের দিকে এগিয়ে চলার চেষ্টা করে।

শিশুমনস্তত্ত্ব সম্পর্কিত আধুনিক ধারণাগুলিতে, বিংশ শতাব্দীর ফরাসি এবং আইকিউ পরীক্ষার স্রষ্টা আলফ্রেড বিনেট এই ধারণাটির প্রতিবাদ করেন যে “প্রতিটি ব্যক্তিরই বুদ্ধি বা আইকিউ-এর একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ রয়েছে। তিনি ‘অনুশীলন, প্রশিক্ষণ এবং পদ্ধতি’ উত্সাহিত করেন এবং পরিবর্তে মনোযোগ, স্মৃতি এবং বিচারের পাশাপাশি বুদ্ধি বাড়ানো যেতে পারে বলেও মনে করতেন। তাঁর গবেষণা ডোয়েকের কাজকে প্রতিষ্ঠা করে। অনুশীলন, প্রশিক্ষণ এবং পদ্ধতির পরিবর্তন কর্মক্ষমতা বাড়াতে পারে তাই পরিবেশগত কারণগুলিও শিক্ষার পরবর্তী ফলাফলগুলিকেও প্রভাবিত করতে পারে। যেমন, স্কুলের বাইরে হোমওয়ার্ক এবং এর অনুশীলনের বৈশিষ্ট্যগুলি যথেষ্ট প্রভাবিত হয়।

উদাহরণস্বরূপ বলা যেতে পারে,  আলী এমন এক শিক্ষার্থী যে ইসলামী আইন ও জ্যামিতির মতো বিষয়গুলিতে ভাল। সব সময়েই একশো শতাংশ নম্বর পেয়েছে।  তবে ব্যাকরণ, ইসলামী ইতিহাস প্রভৃতি বিষয়ে সে পারদর্শী নয়। তাঁর গণিতের শিক্ষক আলির প্রশংসা করেন, ‘বাহ তুমি এত স্মার্ট!’ এবং আলী এই ধারণাটির মধ্যে রয়েছে যে সে যদি অন্য বিষয়ে, একশো শতাংশ স্কোর করে তবেই সে ‘স্মার্ট’ বলে মান্যতা পাবে। অন্যদিকে তার ইসলামী ইতিহাস পরীক্ষার পেপারটি সে পায় ষাট শতাংশ নম্বর। স্বাভাবিক ভাবেই আলির মধ্যে এখন আত্মবিশ্বাসের অভাব দেখা যাবে।

কার্যত ডোয়েক ঠিক এইভাবেই ব্যাখ্যা করে বোঝাতে চেয়েছেন যে উত্সাহ এবং উপযুক্ত শব্দ ব্যবহার, সন্তানের দৃষ্টিভঙ্গিকে, তার সাফল্যের পথে সহায়তা করতেও পারে আবার বাধাও দিতে পারে। কাজেই প্রশংসাসূচক বাক্য ব্যবহারের ক্ষেত্রেও বিশেষভাবে নজর দেওয়া প্রয়োজন। যদিও এটি সাধারণত মনে করা হয় যে কোনও ব্যক্তির আত্মসম্মান এবং কর্মক্ষেত্রের জন্য প্রশংসা উপকারী। তবে আপনি প্রশংসার জন্য কোন শব্দ চয়ন করছেন এবং আপনার প্রশংসার মাপকাঠি পাশে দাঁড়ানো অপর বাচ্চাটিকে হীনমন্যতার দিকে ঠেলে দিচ্ছে না তো? সে বিষয়ে খেয়াল রাখতে হবে।

আপনার সন্তানের প্রথম শিক্ষক হিসাবে আপনি কোন মানসিকতাকে উত্সাহিত করেন? এর পুরো দায়িত্বই রয়েছে আপনার হাতে। পরের বার আপনি যখন আপনার শিশু বা ছাত্রকে তাদের হোমওয়ার্ক করতে সহায়তা করবেন তখন বিবেচনা করুন যে কোন ধরনের কথোপকথন তার বিকাশ এবং সামগ্রিক মানসিকতার পরিবর্তন ঘটাতে পারে।